আজঃ ২৬শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫ - ১০ই ডিসেম্বর ২০১৮ - রাত ২:৪৮

‘প্রধানমন্ত্রীর নয়, এটা বঙ্গবন্ধু কন্যার গল্প’

Published: নভে ১৩, ২০১৮ - ৬:১২ অপরাহ্ণ

প্রতিদিন ডেস্ক :: ‘টানা দুইবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন তিনি, দেশের উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন এখনো। আমরা যখন এই ডকু-ড্রামাটি নির্মাণের পরিকল্পনা করি তখনও তিনি এই দেশের প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু আমরা ৭০ মিনিটের যে সিনেমাটি নির্মাণ করেছি সেটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জীবনী নিয়ে নয়, এটা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনার গল্প’।

‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ নামের মুক্তি প্রতীক্ষিত ডকু-ড্রামাটি নিয়ে এভাবেই বলছিলেন নির্মাতা পিপলু খান।

আসছে ১৬ নভেম্বর মুক্তি পেতে চলেছে শেখ হাসিনার জীবনী নির্ভর ডকু-ড্রামা ‘হাসিনা’। আর সিনেমাটি মুক্তি উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার দুপুরে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে আয়োজন করা হয় ‘মিট দ্য প্রেস’-এর। যেখানে ডকু-ড্রামার নানা দিক তুলে ধরেন নির্মাতা পিপলু খান। এছাড়াও এই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ‘হাসিনা’র পরিবেশক ও গ্রে’র পরিচালক গাউসুল আলম শাওন, সিআইআর-এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সাব্বির শামস ও কণ্ঠশিল্পী শিবু কুমার শীল।

সিআইআর-এর উদ্দেশ্য জানিয়ে এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সাব্বির শামস বলেন, আমরা সাধারণত ইতিহাসের ডকুমেন্টেশন নিয়ে বিভিন্ন সময় প্রকাশনা করি। সেই ভাবনা থেকেই এমন একটি প্রজেক্টে সংযুক্ত হওয়া। আশা করি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জার্নিটা অত্যন্ত সুক্ষ্মভাবে সবাই দেখতে পারবেন।

সংবাদ সম্মেলনের হোস্ট হিসেবে ছিলেন গাউসুল আলম শাওন। তিনি বার বার বলছিলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রাজনীতির মঞ্চে বহুবার দেখেছি। তাকে হাসতে দেখেছি, কাঁদতে দেখেছি। রাজনীতির মঞ্চে মরতে মরতে বাঁচতে দেখেছে। মানুষের পাশে তাকে দেখেছি, মানুষকে তার পাশে দেখেছি। দেখেছি স্লোগানে বক্তৃতায় রাজপথে ভাষণে, দেখেছি গোটা জাতিকে মায়ের আঁচলে আগলে রাখা শাসনে। কিন্তু কখনো দেখেনি একান্ত নিভৃত্তে একা মানুষটাকে, একটি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনাকে।

সিআইআর-এর সঙ্গে কাজ করছেন ‘মেঘদল’-ব্যান্ডের ভোকাল শিবু কুমার শীল। সিনেমাটি নির্মাণের আগে থেকেই তিনি যুক্ত ছিলেন সমস্ত প্রক্রিয়ার সাথে। সিনেমাটির রাফকাটের পর তার কাছে নির্মোহ মন্তব্য চাওয়া হয়েছিলো। সে বিষয়টির কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, প্রবল রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব শেখ হাসিনা। কিন্তু অ্যা-পলিটিক্যাল জায়গা থেকে যে পোট্রেট করা যেতে পারে, এতোটা মানবিক করে সিনেমায় তুলে ধরা যেতে পারে এটা সিনেমাটা না দেখলে কেউ বিশ্বাস করবেন না।

এদিকে সিনেমাটি নির্মাণ করতে প্রধানমন্ত্রীর সাথে দীর্ঘ পাঁচ বছর লেগে ছিলেন নির্মাতা পিপলু খান। সেই অভিজ্ঞতা কেমন ছিলো?-সবার এমন আগ্রহ বুঝেই হয়তো পিপলু বললেন, আমরা যখন কাজটি হাতে নেই তখন ২০১৩ সাল। মানে রানিং প্রধানমন্ত্রীর সাথে কাজ! বিষয়টা সহজ ছিলো না। আমিও ভাবলাম এমন একটা কাজ করতে হলে প্রধানমন্ত্রীর থেকে দূরে দূরে থাকলে হবে না। আমি বুদ্ধি করে উনাকে বললাম, আপনাকে আমি আপা বলে ডাকবো। মাঝে মধ্যে একটু আধটু বিরক্ত করবো। প্রথমে তিনি আমাকে ‘এই ছেলে’ বলে ডাকতেন, এরপর আসতে আসতে আমাকে বললেন ‘এই পিপলু’। এভাবেই আমার কাজটা করতেও সহজ হয়ে যায়।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়িই নভেম্বরের ১৬ তারিখে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে যাচ্ছে বহুল প্রতীক্ষিত চলচ্চিত্র ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’। পিপলু খানের পরিচালনায় ছবিটি দেশের চারটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে যাচ্ছে। ঢাকায় বসুন্ধরা সিনেপ্লেক্স, যমুনা ব্লকবাস্টার ও মধুমিতায় ছবিটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। আর রাজধানীর বাইরে ছবিটি চট্টগ্রামের মিনিপ্লেক্সে দেখানো হবে।

ছবিটি নিয়ে পরে যদি কারো আগ্রহ থাকে তাহলে পরবর্তীতে দেশের যে কোনো হলে ছবিটি মুক্তি দিতে কোনো আপত্তি নেই বলেও জানান পিপলু।

‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ মূলত ডকু-ড্রামা। যার ট্রেলার প্রকাশ হওয়ার পর পরই চারদিকে হইচই পড়ে যায়। চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করেছে আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই)।

৭০ মিনিটের ডকু-ড্রামাটির সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে ছিলেন সাদিক আহমেদ। সম্পাদনায় ছিলেন নবনীতা সেন এবং সংগীতে আছেন ভারতের বিখ্যাত মিউজিশিয়ান দেবজ্যোতি মিশ্র। ইতিমধ্যে এই ডকু-ড্রামায় তার গাওয়া ‘আমার সাধ না মিটিলো’ গানটির চারদিকে জয়জয়কার। নির্মাতা জানান, ছবি মুক্তির আগে ১৫ নভেম্বর একটি প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠানে সিনেমার সাথে সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত থাকবেন। –ছবি: সংগৃহীত

সিলেট প্রতিদিন/১৩ নভেম্বর ২০১৮/জেকে

Facebook Comments

প্রতিদিন ডেস্ক :: ‘টানা দুইবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন তিনি, দেশের উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন এখনো। আমরা যখন এই ডকু-ড্রামাটি নির্মাণের পরিকল্পনা করি তখনও তিনি এই দেশের প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু আমরা ৭০ মিনিটের যে সিনেমাটি নির্মাণ করেছি সেটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জীবনী নিয়ে নয়, এটা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনার গল্প’।

‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ নামের মুক্তি প্রতীক্ষিত ডকু-ড্রামাটি নিয়ে এভাবেই বলছিলেন নির্মাতা পিপলু খান।

আসছে ১৬ নভেম্বর মুক্তি পেতে চলেছে শেখ হাসিনার জীবনী নির্ভর ডকু-ড্রামা ‘হাসিনা’। আর সিনেমাটি মুক্তি উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার দুপুরে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে আয়োজন করা হয় ‘মিট দ্য প্রেস’-এর। যেখানে ডকু-ড্রামার নানা দিক তুলে ধরেন নির্মাতা পিপলু খান। এছাড়াও এই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ‘হাসিনা’র পরিবেশক ও গ্রে’র পরিচালক গাউসুল আলম শাওন, সিআইআর-এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সাব্বির শামস ও কণ্ঠশিল্পী শিবু কুমার শীল।

সিআইআর-এর উদ্দেশ্য জানিয়ে এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সাব্বির শামস বলেন, আমরা সাধারণত ইতিহাসের ডকুমেন্টেশন নিয়ে বিভিন্ন সময় প্রকাশনা করি। সেই ভাবনা থেকেই এমন একটি প্রজেক্টে সংযুক্ত হওয়া। আশা করি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জার্নিটা অত্যন্ত সুক্ষ্মভাবে সবাই দেখতে পারবেন।

সংবাদ সম্মেলনের হোস্ট হিসেবে ছিলেন গাউসুল আলম শাওন। তিনি বার বার বলছিলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রাজনীতির মঞ্চে বহুবার দেখেছি। তাকে হাসতে দেখেছি, কাঁদতে দেখেছি। রাজনীতির মঞ্চে মরতে মরতে বাঁচতে দেখেছে। মানুষের পাশে তাকে দেখেছি, মানুষকে তার পাশে দেখেছি। দেখেছি স্লোগানে বক্তৃতায় রাজপথে ভাষণে, দেখেছি গোটা জাতিকে মায়ের আঁচলে আগলে রাখা শাসনে। কিন্তু কখনো দেখেনি একান্ত নিভৃত্তে একা মানুষটাকে, একটি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনাকে।

সিআইআর-এর সঙ্গে কাজ করছেন ‘মেঘদল’-ব্যান্ডের ভোকাল শিবু কুমার শীল। সিনেমাটি নির্মাণের আগে থেকেই তিনি যুক্ত ছিলেন সমস্ত প্রক্রিয়ার সাথে। সিনেমাটির রাফকাটের পর তার কাছে নির্মোহ মন্তব্য চাওয়া হয়েছিলো। সে বিষয়টির কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, প্রবল রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব শেখ হাসিনা। কিন্তু অ্যা-পলিটিক্যাল জায়গা থেকে যে পোট্রেট করা যেতে পারে, এতোটা মানবিক করে সিনেমায় তুলে ধরা যেতে পারে এটা সিনেমাটা না দেখলে কেউ বিশ্বাস করবেন না।

এদিকে সিনেমাটি নির্মাণ করতে প্রধানমন্ত্রীর সাথে দীর্ঘ পাঁচ বছর লেগে ছিলেন নির্মাতা পিপলু খান। সেই অভিজ্ঞতা কেমন ছিলো?-সবার এমন আগ্রহ বুঝেই হয়তো পিপলু বললেন, আমরা যখন কাজটি হাতে নেই তখন ২০১৩ সাল। মানে রানিং প্রধানমন্ত্রীর সাথে কাজ! বিষয়টা সহজ ছিলো না। আমিও ভাবলাম এমন একটা কাজ করতে হলে প্রধানমন্ত্রীর থেকে দূরে দূরে থাকলে হবে না। আমি বুদ্ধি করে উনাকে বললাম, আপনাকে আমি আপা বলে ডাকবো। মাঝে মধ্যে একটু আধটু বিরক্ত করবো। প্রথমে তিনি আমাকে ‘এই ছেলে’ বলে ডাকতেন, এরপর আসতে আসতে আমাকে বললেন ‘এই পিপলু’। এভাবেই আমার কাজটা করতেও সহজ হয়ে যায়।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়িই নভেম্বরের ১৬ তারিখে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে যাচ্ছে বহুল প্রতীক্ষিত চলচ্চিত্র ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’। পিপলু খানের পরিচালনায় ছবিটি দেশের চারটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে যাচ্ছে। ঢাকায় বসুন্ধরা সিনেপ্লেক্স, যমুনা ব্লকবাস্টার ও মধুমিতায় ছবিটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। আর রাজধানীর বাইরে ছবিটি চট্টগ্রামের মিনিপ্লেক্সে দেখানো হবে।

ছবিটি নিয়ে পরে যদি কারো আগ্রহ থাকে তাহলে পরবর্তীতে দেশের যে কোনো হলে ছবিটি মুক্তি দিতে কোনো আপত্তি নেই বলেও জানান পিপলু।

‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ মূলত ডকু-ড্রামা। যার ট্রেলার প্রকাশ হওয়ার পর পরই চারদিকে হইচই পড়ে যায়। চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করেছে আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই)।

৭০ মিনিটের ডকু-ড্রামাটির সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে ছিলেন সাদিক আহমেদ। সম্পাদনায় ছিলেন নবনীতা সেন এবং সংগীতে আছেন ভারতের বিখ্যাত মিউজিশিয়ান দেবজ্যোতি মিশ্র। ইতিমধ্যে এই ডকু-ড্রামায় তার গাওয়া ‘আমার সাধ না মিটিলো’ গানটির চারদিকে জয়জয়কার। নির্মাতা জানান, ছবি মুক্তির আগে ১৫ নভেম্বর একটি প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠানে সিনেমার সাথে সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত থাকবেন। –ছবি: সংগৃহীত

সিলেট প্রতিদিন/১৩ নভেম্বর ২০১৮/জেকে

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর