আজঃ ১১ই আশ্বিন ১৪২৫ - ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ - রাত ৩:৫৬

সাহেবের বাজারে দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে একটি দোকান পুড়ে ছাই

Published: মার্চ ০৫, ২০১৮ - ১:০৮ অপরাহ্ণ

মোঃ মতিউর রহমান::সিলেট সদর উপজেলার খাদিমনগর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের পাঠানগাও গ্রামের মো. হাবিবুর রহমানের বাড়ির সামনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে পুরো দোকান। রোববার দিবাগত রাতে দোকান ঘরে আগুন লাগে। ফজরের নামাজের সময় এক ব্যক্তি তার দোকানে আগুন দেখে আশপাশের লোকজনকে খবর দেন।

খবর পেয়ে হাবিবুর রহমান এসে দেখেন কে বা কাহারা তার দোকানের তালা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে আগুন লাগিয়ে দেয়। দোকানের মালামালসহ দোকান কোঠা পুড়ে ছাই হয়ে যায়। প্রায় ঘন্টাখানিক চেষ্টা করে এলাকার লোকজন আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। এতক্ষণে প্রায় ৭ লক্ষ টাকার মালামালসহ জরুরী কাগজপত্র ও নগদ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
এ ব্যাপারে দোকানের মালিক হাবিবুর রহমান জানান, এলাকার পাঠানগাও গ্রামের আব্দুস সোবহান ফজরের নামাজের সময় দোকানে আগুন লাগার খবর দেন। তাৎক্ষণিক তিনি এসে দেখতে পান দোকানের তালা ভেঙ্গে রাতের আধারে কে বা কাহারা আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। এতে হাবিবুর রহমানের প্রায় ৭ লক্ষ টাকার মালামাল সহ জরুরী কাগজপত্র ও নগদ অর্থের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুস সোবহান জানান, তিনি ফজরের নামাজে এ রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় হাবিবুর রহমানের দোকানে আগুন দেখতে পান। তাৎক্ষণিকভাবে তিনি হাবিবুর রহমানকে খবর দেন এবং আশপাশের লোকজনকে জড়ো করেন। পরে এলাকার মানুষের সাহায্যে প্রায় ঘন্টা খানেক চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা হয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন, খাদিমনগর ইউপি চেয়ারম্যান মো. দিলোয়ার হোসেন, ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. বশির আহমদ, ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. আনসার আলী ও বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা খাদিমনগর শাখার সভাপতি মুক্তার খাঁ।

Facebook Comments

মোঃ মতিউর রহমান::সিলেট সদর উপজেলার খাদিমনগর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের পাঠানগাও গ্রামের মো. হাবিবুর রহমানের বাড়ির সামনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে পুরো দোকান। রোববার দিবাগত রাতে দোকান ঘরে আগুন লাগে। ফজরের নামাজের সময় এক ব্যক্তি তার দোকানে আগুন দেখে আশপাশের লোকজনকে খবর দেন।

খবর পেয়ে হাবিবুর রহমান এসে দেখেন কে বা কাহারা তার দোকানের তালা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকে আগুন লাগিয়ে দেয়। দোকানের মালামালসহ দোকান কোঠা পুড়ে ছাই হয়ে যায়। প্রায় ঘন্টাখানিক চেষ্টা করে এলাকার লোকজন আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। এতক্ষণে প্রায় ৭ লক্ষ টাকার মালামালসহ জরুরী কাগজপত্র ও নগদ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
এ ব্যাপারে দোকানের মালিক হাবিবুর রহমান জানান, এলাকার পাঠানগাও গ্রামের আব্দুস সোবহান ফজরের নামাজের সময় দোকানে আগুন লাগার খবর দেন। তাৎক্ষণিক তিনি এসে দেখতে পান দোকানের তালা ভেঙ্গে রাতের আধারে কে বা কাহারা আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। এতে হাবিবুর রহমানের প্রায় ৭ লক্ষ টাকার মালামাল সহ জরুরী কাগজপত্র ও নগদ অর্থের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুস সোবহান জানান, তিনি ফজরের নামাজে এ রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় হাবিবুর রহমানের দোকানে আগুন দেখতে পান। তাৎক্ষণিকভাবে তিনি হাবিবুর রহমানকে খবর দেন এবং আশপাশের লোকজনকে জড়ো করেন। পরে এলাকার মানুষের সাহায্যে প্রায় ঘন্টা খানেক চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা হয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন, খাদিমনগর ইউপি চেয়ারম্যান মো. দিলোয়ার হোসেন, ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. বশির আহমদ, ৭নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. আনসার আলী ও বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা খাদিমনগর শাখার সভাপতি মুক্তার খাঁ।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর