আজঃ ২৬শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫ - ১০ই ডিসেম্বর ২০১৮ - দুপুর ১:৫০

শায়খুল হাদিস আল্লামা হোসাইন আহমদ বারকোটি আর নেই

Published: আগ ১২, ২০১৮ - ১০:২২ পূর্বাহ্ণ

সিলেট প্রতিদিন::উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন, এদ্বারায়ে  তালিম বাংলাদেশ বোর্ডের সভাপতি, জামেয়া ইসলামীয়া বারকোট মাদ্রাসার মুহতামিম শায়খুল হাদিস আল্লামা হোসাইন আহমদ বারকোটি আর নেই (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। শনিবার রাত ১১:৪৫ মিনিটের সময় তিনি তাঁর নিজ বাড়ি ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের বারকোটে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। মরহুমের জানাযার নামাজ রবিবার বাদ আসর জামেয়া ইসলামীয়া বারকোট মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত হবে। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। তি‌নি দীর্ঘ‌দিন থে‌কে অসুস্থ ছি‌লেন। তাঁর মৃত্যুর খবর শু‌নে সর্বমহ‌লে শো‌কের ছায়া নে‌মে আ‌সে।
শায়খুল হাদীস হুসাইন আহমদ বারকোটী ১৯২৪ সালে উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ বারকোট গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতা আব্দুল গফুর ও মাতা ফয়জুন নেছা।

মাওলানা হুসাইন আহমদের শিক্ষাজীবন শুরু বারকোট গ্রামের মাওলানা আব্দুল লতিফ (রঃ) এর প্রতিষ্ঠিত ‘হাদী বিছরায়’ মক্তবে (বর্তমান বারকোট মাদ্রাসা)। এখানে সরেযামি জামাত পর্যন্ত লেখাপড়া শেষে রাণাপিং মাদ্রাসায় দাওরায়ে হাদীস (টাইটেল কাস) সমাপ্ত করেন। পড়ালেখা শেষে তিনি রাণাপিং মাদ্রাসায় শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। পরবর্তীতে বিয়ানীবাজার উপজেলার দেউলগ্রাম মাদ্রাসা, জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর মাদ্রাসা, সিলেট শহরের দরগাহ মাদ্রাসা, নিজ গ্রামের বারকোট মাদ্রাসায় শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ছিলেন।
বারকোট মাদ্রাসার তৎকালিন মুহতামিম হাফিজ মাওলানা আব্দুল গফ্ফার (বড় মেছাব) অসুস্থ হয়ে পড়লে মাওলানা হুসাইন আহমদকে মুহতামিমের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। বর্তমান পর্যন্ত তিনি বারকোট মাদ্রাসার মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি বিয়ানীবাজার উপজেলার দেউলগ্রাম মাদ্রাসার মুহতামিম ও ঢাকাদক্ষিণ দারুল উলুম হুসাইনিয়া মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করেন।
শায়খুল হাদীস হুসাইন আহমদ বারকোটী দেউলগ্রাম মাদ্রাসা, ঢাকাদক্ষিণ মদ্রাসা, সৈয়দপুর মাদ্রাসা, রামধা মাদ্রাসা ও মেওয়া মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস হিসেবে শিক্ষাদান করেন।

শিক্ষকতার পাশাপাশি মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকোটী রাজনীতিতেও সক্রিয় ছি‌লেন। তিনি দেশ স্বাধীনের পূর্ব থেকেই জামিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাথে জড়িত। ১৯৭১ সালে মাওলানা বশির আহমদ শায়খে বাঘা (রঃ) এর মৃত্যুর পর থেকে অসুস্থ হওয়ার আগ পর্যন্ত গোলাপগঞ্জ উপজেলা জামিয়তের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এছাড়া কেন্দ্রীয় জমিয়তের সহ-সভাপতির পাশাপাশি দীর্ঘদিন সিলেট জেলা জামিয়তের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

মাওলানা হুসাইন আহমদ বারকোটী খলিফায়ে মাদানী আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া (রঃ) এর অন্যতম খলিফা। তাঁর উস্তাদদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন মাওলানা আব্দুল লতিফ (রঃ), মাওলানা রিয়াছত আলী শায়খে চৌঘরী (রঃ) ও মাওলানা আব্দুর রহিম শেরপুরী (রঃ)।

ব্যক্তিগত জীবনে মাওলানা হুসাইন আহমদ বারকোটী পাঁচ পুত্র ও তিন কন্যা সন্তানের জনক। তাঁর সকল পুত্রই আলেম ও বিভিন্ন মাদ্রাসায় শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন।

Facebook Comments

সিলেট প্রতিদিন::উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন, এদ্বারায়ে  তালিম বাংলাদেশ বোর্ডের সভাপতি, জামেয়া ইসলামীয়া বারকোট মাদ্রাসার মুহতামিম শায়খুল হাদিস আল্লামা হোসাইন আহমদ বারকোটি আর নেই (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। শনিবার রাত ১১:৪৫ মিনিটের সময় তিনি তাঁর নিজ বাড়ি ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের বারকোটে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। মরহুমের জানাযার নামাজ রবিবার বাদ আসর জামেয়া ইসলামীয়া বারকোট মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত হবে। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। তি‌নি দীর্ঘ‌দিন থে‌কে অসুস্থ ছি‌লেন। তাঁর মৃত্যুর খবর শু‌নে সর্বমহ‌লে শো‌কের ছায়া নে‌মে আ‌সে।
শায়খুল হাদীস হুসাইন আহমদ বারকোটী ১৯২৪ সালে উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ বারকোট গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতা আব্দুল গফুর ও মাতা ফয়জুন নেছা।

মাওলানা হুসাইন আহমদের শিক্ষাজীবন শুরু বারকোট গ্রামের মাওলানা আব্দুল লতিফ (রঃ) এর প্রতিষ্ঠিত ‘হাদী বিছরায়’ মক্তবে (বর্তমান বারকোট মাদ্রাসা)। এখানে সরেযামি জামাত পর্যন্ত লেখাপড়া শেষে রাণাপিং মাদ্রাসায় দাওরায়ে হাদীস (টাইটেল কাস) সমাপ্ত করেন। পড়ালেখা শেষে তিনি রাণাপিং মাদ্রাসায় শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। পরবর্তীতে বিয়ানীবাজার উপজেলার দেউলগ্রাম মাদ্রাসা, জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর মাদ্রাসা, সিলেট শহরের দরগাহ মাদ্রাসা, নিজ গ্রামের বারকোট মাদ্রাসায় শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ছিলেন।
বারকোট মাদ্রাসার তৎকালিন মুহতামিম হাফিজ মাওলানা আব্দুল গফ্ফার (বড় মেছাব) অসুস্থ হয়ে পড়লে মাওলানা হুসাইন আহমদকে মুহতামিমের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। বর্তমান পর্যন্ত তিনি বারকোট মাদ্রাসার মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি বিয়ানীবাজার উপজেলার দেউলগ্রাম মাদ্রাসার মুহতামিম ও ঢাকাদক্ষিণ দারুল উলুম হুসাইনিয়া মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করেন।
শায়খুল হাদীস হুসাইন আহমদ বারকোটী দেউলগ্রাম মাদ্রাসা, ঢাকাদক্ষিণ মদ্রাসা, সৈয়দপুর মাদ্রাসা, রামধা মাদ্রাসা ও মেওয়া মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস হিসেবে শিক্ষাদান করেন।

শিক্ষকতার পাশাপাশি মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকোটী রাজনীতিতেও সক্রিয় ছি‌লেন। তিনি দেশ স্বাধীনের পূর্ব থেকেই জামিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাথে জড়িত। ১৯৭১ সালে মাওলানা বশির আহমদ শায়খে বাঘা (রঃ) এর মৃত্যুর পর থেকে অসুস্থ হওয়ার আগ পর্যন্ত গোলাপগঞ্জ উপজেলা জামিয়তের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এছাড়া কেন্দ্রীয় জমিয়তের সহ-সভাপতির পাশাপাশি দীর্ঘদিন সিলেট জেলা জামিয়তের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

মাওলানা হুসাইন আহমদ বারকোটী খলিফায়ে মাদানী আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া (রঃ) এর অন্যতম খলিফা। তাঁর উস্তাদদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন মাওলানা আব্দুল লতিফ (রঃ), মাওলানা রিয়াছত আলী শায়খে চৌঘরী (রঃ) ও মাওলানা আব্দুর রহিম শেরপুরী (রঃ)।

ব্যক্তিগত জীবনে মাওলানা হুসাইন আহমদ বারকোটী পাঁচ পুত্র ও তিন কন্যা সন্তানের জনক। তাঁর সকল পুত্রই আলেম ও বিভিন্ন মাদ্রাসায় শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর