আজঃ ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫ - ১৫ই নভেম্বর ২০১৮ - রাত ১২:৪৩

রাজুর অত্যাচারে অতিষ্ট এলাকাবাসী গ্রেফতারের দাবিতে স্মারকলিপি

Published: সেপ্টে ০৪, ২০১৮ - ৩:৩১ অপরাহ্ণ

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি::সন্ত্রাসী রাজু ও তার চক্রের ত্রাসের রাজত্ব নগরীর আম্বরখানা ও শাহী ঈদগাহ। ফলে বিঘ্নিত হচ্ছে জননিরাপত্তা। একাধিক মামলার পলাতক আসামী হলেও অজ্ঞাত কারণে তাদেরে গ্রেফতার করছে না পুলিশ। আতংকিত এলাকাবাসী সন্ত্রাসী রাজুচক্রের গ্রেফতার দাবিতে সোমবার (৩সেপ্টেম্বর) এসএমপি কমিশনার ও র‌্যাব ৯-এর অধিনায়ক বরাবরে পৃথক স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।

সন্ত্রাসী ইশতিয়াক আহমদ রাজু ওরফে রাজু আহমদ ওরফে রাজু (৩১) সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার নগর গ্রামের মৃত আব্দুর রহমান সনন-এর পুত্র। দীর্ঘদিন ধরে নগরীর আম্বরখানা বড়বাজার ও খাসদবীর এলাকায় তার বসবাস। বৈধ কর্মসংস্থান ও ব্যবসা বাণিজ্য ছাড়াই রাজু নগরীতে অবস্থান করে একটি সন্ত্রাসীচক্র গড়ে এলাকায় ছিনতাই রাহাজানীসহ নানা অপরাধ অপকর্ম চালিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রখেছে।

রাজু ও তার সহযোগীরা ১৬ জুলাই নগরীর লালটিলায় প্রকাশ্যে হামলা চালিয়ে যুবলীগ কর্মী শাহীন মিয়াকে গুরুতর আহত করে। মৃতপ্রায় অবস্থায় শাহীনকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় শাহীনের পিতা কামাল মিয়া বাদী হয়ে গত ১৯ জুলাই সিলেট এয়ারপোর্ট থানায় রাজু ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা {নং-২০(৭)১৮}করেন। এ মামলায় পলাতক থাকলেও অজ্ঞাতকারনে রাজু ও তার সহযোগীদের গ্রেফতার করছে না পুলিশ।

এর আগে গত ২৬ আগস্ট রাতে রাজু ও তার সহযোগীরা নগরীর পূর্ব শাহী ঈদগাহে প্রকাশ্য হামলা চালায় সাজ্জাদ হোসেনের উপর। আশংকাজনক অবস্থায় সাজ্জাদকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়া ঐদিন রাতে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে রেফার্ড করে ওসমানী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে তিনি পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। পরে জরুরী অবস্থায় এ ঘটনায় সাজ্জাদের ভাই মনসুর আহমদ বাদী হয়ে সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানায় রাজু ও রনি-সহ সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা {নং-৪৩(৮)১৮} করেন।

এ মামলায়ও রাজু ও তার সহযোগীরা পলাতক থেকে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং মামলার বাদীকে নানা হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। রাজু ও তার সন্ত্রাসীরা সম্প্রতি আম্বরখানাস্থ মার্কেটে হামলা ও লুটপাট চালায়। এর প্রতিবাদে বৃহত্তর আম্বরখানা-শাহী ইদগাহের ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেন।

সন্ত্রাসী রাজু ও তার চক্রের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন আম্বরখানা-শাহী ইদগাহ এলাকার জনমানুষ। তারা রাজু ও তার সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার দাবিতে সোমবার (৩ সেপ্টেম্বর) সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার ও অধিনায়ক র‌্যাব-৯ বরাবরে পৃথক স্মারকরিপি দিয়ে সরকার ও প্রশানের উর্ধতন মহলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এসএমপি’র ডেসপাস শাখা স্মারকলিপি প্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

Facebook Comments

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি::সন্ত্রাসী রাজু ও তার চক্রের ত্রাসের রাজত্ব নগরীর আম্বরখানা ও শাহী ঈদগাহ। ফলে বিঘ্নিত হচ্ছে জননিরাপত্তা। একাধিক মামলার পলাতক আসামী হলেও অজ্ঞাত কারণে তাদেরে গ্রেফতার করছে না পুলিশ। আতংকিত এলাকাবাসী সন্ত্রাসী রাজুচক্রের গ্রেফতার দাবিতে সোমবার (৩সেপ্টেম্বর) এসএমপি কমিশনার ও র‌্যাব ৯-এর অধিনায়ক বরাবরে পৃথক স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।

সন্ত্রাসী ইশতিয়াক আহমদ রাজু ওরফে রাজু আহমদ ওরফে রাজু (৩১) সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার নগর গ্রামের মৃত আব্দুর রহমান সনন-এর পুত্র। দীর্ঘদিন ধরে নগরীর আম্বরখানা বড়বাজার ও খাসদবীর এলাকায় তার বসবাস। বৈধ কর্মসংস্থান ও ব্যবসা বাণিজ্য ছাড়াই রাজু নগরীতে অবস্থান করে একটি সন্ত্রাসীচক্র গড়ে এলাকায় ছিনতাই রাহাজানীসহ নানা অপরাধ অপকর্ম চালিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রখেছে।

রাজু ও তার সহযোগীরা ১৬ জুলাই নগরীর লালটিলায় প্রকাশ্যে হামলা চালিয়ে যুবলীগ কর্মী শাহীন মিয়াকে গুরুতর আহত করে। মৃতপ্রায় অবস্থায় শাহীনকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় শাহীনের পিতা কামাল মিয়া বাদী হয়ে গত ১৯ জুলাই সিলেট এয়ারপোর্ট থানায় রাজু ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা {নং-২০(৭)১৮}করেন। এ মামলায় পলাতক থাকলেও অজ্ঞাতকারনে রাজু ও তার সহযোগীদের গ্রেফতার করছে না পুলিশ।

এর আগে গত ২৬ আগস্ট রাতে রাজু ও তার সহযোগীরা নগরীর পূর্ব শাহী ঈদগাহে প্রকাশ্য হামলা চালায় সাজ্জাদ হোসেনের উপর। আশংকাজনক অবস্থায় সাজ্জাদকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়া ঐদিন রাতে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে রেফার্ড করে ওসমানী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে তিনি পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। পরে জরুরী অবস্থায় এ ঘটনায় সাজ্জাদের ভাই মনসুর আহমদ বাদী হয়ে সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানায় রাজু ও রনি-সহ সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা {নং-৪৩(৮)১৮} করেন।

এ মামলায়ও রাজু ও তার সহযোগীরা পলাতক থেকে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং মামলার বাদীকে নানা হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। রাজু ও তার সন্ত্রাসীরা সম্প্রতি আম্বরখানাস্থ মার্কেটে হামলা ও লুটপাট চালায়। এর প্রতিবাদে বৃহত্তর আম্বরখানা-শাহী ইদগাহের ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেন।

সন্ত্রাসী রাজু ও তার চক্রের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন আম্বরখানা-শাহী ইদগাহ এলাকার জনমানুষ। তারা রাজু ও তার সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার দাবিতে সোমবার (৩ সেপ্টেম্বর) সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার ও অধিনায়ক র‌্যাব-৯ বরাবরে পৃথক স্মারকরিপি দিয়ে সরকার ও প্রশানের উর্ধতন মহলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এসএমপি’র ডেসপাস শাখা স্মারকলিপি প্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর