আজঃ ১০ই আশ্বিন ১৪২৫ - ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ - বিকাল ৪:০৭

মনের ব্যাকরণ

Published: মার্চ ৩১, ২০১৬ - ৬:০৪ অপরাহ্ণ

মন অনেক খারাপ। অবশ্য মন খারাপের উপযুক্ত কারণ আছে। বাংলাদেশ একটুর জন্য হেরে গেলো! ইশ! যদি তাসকিন থাকতো,যদি আরেকটু বেশি রান করতে পারতাম। এতো কাছে তবু এতো দূর! যাই হোক,কারন ছাড়া ও যে মন খারাপ হয় না তা না কিন্ত। আমার মন সকালে,দুপুরে বিকেলে সন্ধ্যায় সময়ে অসময়ে খারাপ হয়! মন আজব জিনিষ। মন বলতে কিছু আছে কিনা সেটা নিয়ে বিতর্ক হতে পারে,অনেকে বলেন, মন বলতে কিছু নাই, সবই ব্রেইনের খেইড়! ব্রেইনকেই মন হিসেবে ধরে নিলাম! তোমার মন খারাপ? না বলে তোমার ব্রেইন/মাথা খারাপ বললে কি পরিণতি হতে পারে সেটা ভেবে দেখুন। ধরুন, পরিক্ষা দিতে গেলাম, প্রস্তুতি মোটামুটি ভালো, প্রশ্ন হাতে নিলাম, চারটির উত্তর করতে হবে। তিনটি প্রশ্ন কমন আরেকটা পড়ার ভিতরে আসে নি! এখন মনে হবে দূর! পড়লাম না কেন! মনটা খারাপ হয়ে গেলো এতো গেলো আমার মধ্য মধ্যম সারির স্টুডেন্টদের কথা। যারা খুব ভালো তাদেরও পরিক্ষার হলে মন খারাপ হয়! খুব ভালো প্রস্তুতি, সব কঠিন কঠিন থিওরী,বইয়ের নাম, লেখকের নাম সব কণ্ঠস্থ… প্রশ্ন হাতে নিয়ে দেখা গেলো হায় হায়! যে সব প্রশ্ন সহজভেবে পড়িনি, এগুলোই দেখি আসছে। হুদাই এতো পেইন নিলাম বেচারার মন খারাপ হয়ে গেলো। লিখবে কী??? মন ভালো থাকা না থাকা পুরোপুরি নিজের উপর নির্ভর করে। মাঝে মাঝে অবাক হই এটা ভেবে যে, কতো সুখে আছি তবুও কেনো মন খারাপ হয়! নিজের কথা বলি, কিসের অভাব??? টিউশনি করছি- মাস শেষে বেতন পাচ্ছি হোক সেটা অল্প, কিংবা পাচ তারিখের বেতন অর্ধ মাস পরে তবুও পাচ্ছি তো। হয়তো এই টাকা দিয়ে ভালো ব্র‍্যান্ডের শার্ট/প্যান্ট কিনা যাবে না বড় রেস্টুরেন্ট এ আহার করা যাবে না, তারপর ও তো ভালো মন্দ পরছি, বিরিয়ানি না খাওয়া হলো কাচা মরিচ আর আলো ভর্তা দিয়ে পেট ভরে ভাত তো খাচ্ছি। আমরা আসলে অদ্ভুত! কত কিছু পেয়েও না পাওয়ার অনলে পুড়ে ছাড়খার হই। যে ছেলে গোল্ডেন পায় তার আফসোস কেনো বোর্ডে প্লেস করতে পারলাম না। যার একশ’জন বন্ধু আছে সেও কোন এক অপ্সরীর জন্য বিরহে কাতর হয়ে নিদ্রাহীন রাত্তি যাপন করে। যার কোন বিরহ নেই সে কৃত্তিম বিরহ তৈরী করে নেয়। দুঃখ না পেয়েও দুখী ভাব নিয়ে দিন কাটায়। সত্যি সত্যি আমাদের মন বড়ই বিচিত্র। এ মনের ব্যাকরণ বোঝা দায়।

শায়খুল ইসলাম

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়

sylhetprothidin24

sylhetprothidin24

Facebook Comments

মন অনেক খারাপ। অবশ্য মন খারাপের উপযুক্ত কারণ আছে। বাংলাদেশ একটুর জন্য হেরে গেলো! ইশ! যদি তাসকিন থাকতো,যদি আরেকটু বেশি রান করতে পারতাম। এতো কাছে তবু এতো দূর! যাই হোক,কারন ছাড়া ও যে মন খারাপ হয় না তা না কিন্ত। আমার মন সকালে,দুপুরে বিকেলে সন্ধ্যায় সময়ে অসময়ে খারাপ হয়! মন আজব জিনিষ। মন বলতে কিছু আছে কিনা সেটা নিয়ে বিতর্ক হতে পারে,অনেকে বলেন, মন বলতে কিছু নাই, সবই ব্রেইনের খেইড়! ব্রেইনকেই মন হিসেবে ধরে নিলাম! তোমার মন খারাপ? না বলে তোমার ব্রেইন/মাথা খারাপ বললে কি পরিণতি হতে পারে সেটা ভেবে দেখুন। ধরুন, পরিক্ষা দিতে গেলাম, প্রস্তুতি মোটামুটি ভালো, প্রশ্ন হাতে নিলাম, চারটির উত্তর করতে হবে। তিনটি প্রশ্ন কমন আরেকটা পড়ার ভিতরে আসে নি! এখন মনে হবে দূর! পড়লাম না কেন! মনটা খারাপ হয়ে গেলো এতো গেলো আমার মধ্য মধ্যম সারির স্টুডেন্টদের কথা। যারা খুব ভালো তাদেরও পরিক্ষার হলে মন খারাপ হয়! খুব ভালো প্রস্তুতি, সব কঠিন কঠিন থিওরী,বইয়ের নাম, লেখকের নাম সব কণ্ঠস্থ… প্রশ্ন হাতে নিয়ে দেখা গেলো হায় হায়! যে সব প্রশ্ন সহজভেবে পড়িনি, এগুলোই দেখি আসছে। হুদাই এতো পেইন নিলাম বেচারার মন খারাপ হয়ে গেলো। লিখবে কী??? মন ভালো থাকা না থাকা পুরোপুরি নিজের উপর নির্ভর করে। মাঝে মাঝে অবাক হই এটা ভেবে যে, কতো সুখে আছি তবুও কেনো মন খারাপ হয়! নিজের কথা বলি, কিসের অভাব??? টিউশনি করছি- মাস শেষে বেতন পাচ্ছি হোক সেটা অল্প, কিংবা পাচ তারিখের বেতন অর্ধ মাস পরে তবুও পাচ্ছি তো। হয়তো এই টাকা দিয়ে ভালো ব্র‍্যান্ডের শার্ট/প্যান্ট কিনা যাবে না বড় রেস্টুরেন্ট এ আহার করা যাবে না, তারপর ও তো ভালো মন্দ পরছি, বিরিয়ানি না খাওয়া হলো কাচা মরিচ আর আলো ভর্তা দিয়ে পেট ভরে ভাত তো খাচ্ছি। আমরা আসলে অদ্ভুত! কত কিছু পেয়েও না পাওয়ার অনলে পুড়ে ছাড়খার হই। যে ছেলে গোল্ডেন পায় তার আফসোস কেনো বোর্ডে প্লেস করতে পারলাম না। যার একশ’জন বন্ধু আছে সেও কোন এক অপ্সরীর জন্য বিরহে কাতর হয়ে নিদ্রাহীন রাত্তি যাপন করে। যার কোন বিরহ নেই সে কৃত্তিম বিরহ তৈরী করে নেয়। দুঃখ না পেয়েও দুখী ভাব নিয়ে দিন কাটায়। সত্যি সত্যি আমাদের মন বড়ই বিচিত্র। এ মনের ব্যাকরণ বোঝা দায়।

শায়খুল ইসলাম

শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়

sylhetprothidin24

sylhetprothidin24

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর