আজঃ ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫ - ১৫ই নভেম্বর ২০১৮ - রাত ৪:৫০

ব্রাজিল কোচের চোখে বাংলাদেশের পাকিস্তান বধ

Published: সেপ্টে ০৭, ২০১৮ - ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

ক্রীড়া ডেস্ক :: র‌্যাঙ্কিং পার্থক্য খুব একটা না থাকলেও শারীরিকভাবে যে পাকিস্তান শক্তিশালী তা মাঠেই প্রমাণ করেছে নেপালের সঙ্গে সাফ ফুটবলে প্রথম ম্যাচ জিতে। তবে, গেল এশিয়ান গেমসে অভাবনীয় সাফল্য আনা বাংলাদেশের ফুটবলাররা তারই ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে সাফ ফুটবলেও। ভুটানের পর পাকিস্তানকে হারিয়ে দিয়ে এখন সেমি ফাইনালের পথে এক ধাপ পা এগিয়ে দিয়ে রেখেছে জামাল-তপু-মামুনরা।

দেশের জাতীয় ফুটবল দলের কোচ ফরমেশন আর স্কোয়াড বদলের কথা বলেছিলেন পাকিস্তান ম্যাচকে ঘিরে। আজকের ম্যাচেও তারই প্রতিফলন পাওয়া গেলো। এবার জেমি ডে’র ছক কষলেন ৪-২-৩-১ ফরম্যাশনে। অভিজ্ঞ জামাল ভুঁইয়া আর প্রথম ম্যাচে একাদশের বাইরে থাকা তুরুপের তাস অভিজ্ঞ মামুনকে নামিয়ে ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হিসেবে খেলিয়েছেন। তাতেই মাঝমাঠের সমন্বয়টা ‘ফুল-অন’ হয়ে গেছে।

ম্যাচের লাটাইও তাদের হাতেই ছিল। তবে, পাকিস্তান বধের কারণ জানিয়েছে দলটি ব্রাজিলিয়ান কোচ হোসে অন্তনিও নুগেইরা।

তিনি বলেন, ‘দুর্দান্ত একটা ম্যাচ হয়েছে। ম্যাচে পাকিস্তানও অনেকগুলো সুযোগ ব্লক করেছে। বাংলাদেশও করেছে। ফিফটি ফিফটি ছিল ম্যাচটা। বাংলাদেশ হোম দল হিসেবে ভালো খেলেছে। দুর্ভাগ্যবশত আমরা ওন গোল খেয়েছি থ্রোয়িং থেকে। এটাই আসলে কারণ। বাংলাদেশের জন্যও এটা ভালো একটা ম্যাচ ছিল। কোয়ালিফাই করার জন্য তারা ধাপ এগিয়ে গেলো।’

এর আগে দুই দল ১৬ বার মুখোমুখি হয়েছে। এতে উভই জিতেছে ৬টি করে ম্যাচ। বাকি ৪টি ম্যাচ ড্র হয়। প্রীতি ম্যাচের মুখোমুখি লড়াইয়ে অবশ্য পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। ১২বারের দেখায় পাকিস্তানের ৬ জয়ের বিপরীতে বাংলাদেশের জয় ৪টিতে। ২টি ম্যাচে কেউ হারেনি। যে কোনো ফুটবলে দুই দেশের সবশেষ খেলায় জয় পাকিস্তানের। ২০১৩ সালের ৫ সেপ্টেম্বর নেপালের কাঠমুন্ডুতে প্রীতি ম্যাচে ১-২ গোলে হেরেছিল বাংলাদেশ।

পাকিস্তানকে বাংলাদেশ সবশেষ হারিয়েছে সাত বছর আগে। ২০১১ সালের ২৯ জুন এই বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামেই বিশ্বকাপ বাছাই ফুটবলে লাল-সবুজের দেশ জিতেছিল ৩-০ গোলে। এবার সাত বছর পর সেই জয় আসলো সাফ ফুটবলে।

এর আগে সাফ ফুটবলে কখনই ফাইনালে পৌঁছাতে পারেনি পাকিস্তান। এবারও কি সেই পথে এগুবে তারা?

কোচ নিগুইরা জানালেন, ‘আমরাও ভালো খেলেছি। বাংলাদেশেও অনেক ভালো খেলেছি। একটা কোয়ালিটিফুল ম্যাচ হয়েছে। দুর্দান্ত ম্যাচ। আমাদেরও সুযোগ আছে সেমি ফাইনালে যাওয়ার। ভুটানের সঙ্গে ম্যাচ আছে। জিততে পারলে পাকিস্তানও ছয় পয়েন্ট পাবে।’

 

Facebook Comments

ক্রীড়া ডেস্ক :: র‌্যাঙ্কিং পার্থক্য খুব একটা না থাকলেও শারীরিকভাবে যে পাকিস্তান শক্তিশালী তা মাঠেই প্রমাণ করেছে নেপালের সঙ্গে সাফ ফুটবলে প্রথম ম্যাচ জিতে। তবে, গেল এশিয়ান গেমসে অভাবনীয় সাফল্য আনা বাংলাদেশের ফুটবলাররা তারই ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে সাফ ফুটবলেও। ভুটানের পর পাকিস্তানকে হারিয়ে দিয়ে এখন সেমি ফাইনালের পথে এক ধাপ পা এগিয়ে দিয়ে রেখেছে জামাল-তপু-মামুনরা।

দেশের জাতীয় ফুটবল দলের কোচ ফরমেশন আর স্কোয়াড বদলের কথা বলেছিলেন পাকিস্তান ম্যাচকে ঘিরে। আজকের ম্যাচেও তারই প্রতিফলন পাওয়া গেলো। এবার জেমি ডে’র ছক কষলেন ৪-২-৩-১ ফরম্যাশনে। অভিজ্ঞ জামাল ভুঁইয়া আর প্রথম ম্যাচে একাদশের বাইরে থাকা তুরুপের তাস অভিজ্ঞ মামুনকে নামিয়ে ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হিসেবে খেলিয়েছেন। তাতেই মাঝমাঠের সমন্বয়টা ‘ফুল-অন’ হয়ে গেছে।

ম্যাচের লাটাইও তাদের হাতেই ছিল। তবে, পাকিস্তান বধের কারণ জানিয়েছে দলটি ব্রাজিলিয়ান কোচ হোসে অন্তনিও নুগেইরা।

তিনি বলেন, ‘দুর্দান্ত একটা ম্যাচ হয়েছে। ম্যাচে পাকিস্তানও অনেকগুলো সুযোগ ব্লক করেছে। বাংলাদেশও করেছে। ফিফটি ফিফটি ছিল ম্যাচটা। বাংলাদেশ হোম দল হিসেবে ভালো খেলেছে। দুর্ভাগ্যবশত আমরা ওন গোল খেয়েছি থ্রোয়িং থেকে। এটাই আসলে কারণ। বাংলাদেশের জন্যও এটা ভালো একটা ম্যাচ ছিল। কোয়ালিফাই করার জন্য তারা ধাপ এগিয়ে গেলো।’

এর আগে দুই দল ১৬ বার মুখোমুখি হয়েছে। এতে উভই জিতেছে ৬টি করে ম্যাচ। বাকি ৪টি ম্যাচ ড্র হয়। প্রীতি ম্যাচের মুখোমুখি লড়াইয়ে অবশ্য পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। ১২বারের দেখায় পাকিস্তানের ৬ জয়ের বিপরীতে বাংলাদেশের জয় ৪টিতে। ২টি ম্যাচে কেউ হারেনি। যে কোনো ফুটবলে দুই দেশের সবশেষ খেলায় জয় পাকিস্তানের। ২০১৩ সালের ৫ সেপ্টেম্বর নেপালের কাঠমুন্ডুতে প্রীতি ম্যাচে ১-২ গোলে হেরেছিল বাংলাদেশ।

পাকিস্তানকে বাংলাদেশ সবশেষ হারিয়েছে সাত বছর আগে। ২০১১ সালের ২৯ জুন এই বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামেই বিশ্বকাপ বাছাই ফুটবলে লাল-সবুজের দেশ জিতেছিল ৩-০ গোলে। এবার সাত বছর পর সেই জয় আসলো সাফ ফুটবলে।

এর আগে সাফ ফুটবলে কখনই ফাইনালে পৌঁছাতে পারেনি পাকিস্তান। এবারও কি সেই পথে এগুবে তারা?

কোচ নিগুইরা জানালেন, ‘আমরাও ভালো খেলেছি। বাংলাদেশেও অনেক ভালো খেলেছি। একটা কোয়ালিটিফুল ম্যাচ হয়েছে। দুর্দান্ত ম্যাচ। আমাদেরও সুযোগ আছে সেমি ফাইনালে যাওয়ার। ভুটানের সঙ্গে ম্যাচ আছে। জিততে পারলে পাকিস্তানও ছয় পয়েন্ট পাবে।’

 

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর