আজঃ ৫ই কার্তিক ১৪২৫ - ২০শে অক্টোবর ২০১৮ - সকাল ৭:১৩

বিশ্ব জঙ্গীবাদের চ্যালেঞ্জ রুখে দাঁড়াতে হবে -শিক্ষামন্ত্রী

Published: অক্টো ১৩, ২০১৮ - ১১:৩৮ অপরাহ্ণ

রাবাত (মরক্কো) থেকে :: শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বিশ্ব জঙ্গীবাদের চ্যালেঞ্জ রুেেখ দাঁড়ানোর জন্য মুসলিম উম্মাহর দেশসমূহের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

তিনি আজ আইসেসকো’র সদরদপ্তর রাবাতে ইসলামিক এডুকেশনাল সায়েন্টিফিক এন্ড কালচারাল অরগানাইজেশন (আইসেসেকো)’র দু’দিনব্যাপী ১৩তম সেশনের উদ্বোধনী দিনে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের দলনেতা হিসেবে বক্তব্যে এ আহ্বান জানান।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ মুসলিম উম্মাহর শান্তি ও ঐক্য বিষয়ে আঞ্চলিক সহযোগিতার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য, দূরদর্শী ও মানবিক সিদ্ধান্তে মায়ানমার থেকে আসা ১১ লক্ষ রোহিঙ্গা শরনার্থীকে আশ্রয় দেয়ার বিষয় উল্লেখ করে করে বলেন বিশ্ব নেতৃত্ব একে উচ্চশিত প্রশংসা করেছেন। তিনি এসব রোহিঙ্গাদেরকে যথাশীঘ্র তাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনে মায়ানমারের ওপর অধিকতর চাপ অব্যাহত রাখায় সম্মিলিত সক্রিয় ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান।

এছাড়াও তিনি সম্মেলনে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ সরকারের উল্লেখযোগ্য কর্মকান্ডের কথা তুলে ধরেন। এক্ষেত্রে তিনি মানসম্মত শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দারিদ্র বিমোচনসহ নানা কর্মসূচির উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, দু’দিনব্যাপী এ সম্মেলনে আইসেসকোভুক্ত ৫৪টি রাষ্ট্রের মন্ত্রী ও প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন। মরক্কোতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মিস লায়লা সুলতানা এবং বাংলাদেশ ইউনেস্কো কমিশনের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল মনজুর হোসেন সম্মেলনে যোগ দেন।

Facebook Comments

রাবাত (মরক্কো) থেকে :: শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বিশ্ব জঙ্গীবাদের চ্যালেঞ্জ রুেেখ দাঁড়ানোর জন্য মুসলিম উম্মাহর দেশসমূহের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

তিনি আজ আইসেসকো’র সদরদপ্তর রাবাতে ইসলামিক এডুকেশনাল সায়েন্টিফিক এন্ড কালচারাল অরগানাইজেশন (আইসেসেকো)’র দু’দিনব্যাপী ১৩তম সেশনের উদ্বোধনী দিনে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের দলনেতা হিসেবে বক্তব্যে এ আহ্বান জানান।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ মুসলিম উম্মাহর শান্তি ও ঐক্য বিষয়ে আঞ্চলিক সহযোগিতার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য, দূরদর্শী ও মানবিক সিদ্ধান্তে মায়ানমার থেকে আসা ১১ লক্ষ রোহিঙ্গা শরনার্থীকে আশ্রয় দেয়ার বিষয় উল্লেখ করে করে বলেন বিশ্ব নেতৃত্ব একে উচ্চশিত প্রশংসা করেছেন। তিনি এসব রোহিঙ্গাদেরকে যথাশীঘ্র তাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনে মায়ানমারের ওপর অধিকতর চাপ অব্যাহত রাখায় সম্মিলিত সক্রিয় ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান।

এছাড়াও তিনি সম্মেলনে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ সরকারের উল্লেখযোগ্য কর্মকান্ডের কথা তুলে ধরেন। এক্ষেত্রে তিনি মানসম্মত শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দারিদ্র বিমোচনসহ নানা কর্মসূচির উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, দু’দিনব্যাপী এ সম্মেলনে আইসেসকোভুক্ত ৫৪টি রাষ্ট্রের মন্ত্রী ও প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন। মরক্কোতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মিস লায়লা সুলতানা এবং বাংলাদেশ ইউনেস্কো কমিশনের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল মনজুর হোসেন সম্মেলনে যোগ দেন।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর