আজঃ ২৬শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫ - ১০ই ডিসেম্বর ২০১৮ - দুপুর ১:৪৭

আরিফ-মুক্তাদিরের জিন্দাবাদ রাজনীতির কারনে খুন হয়েছে আমার বাতিজা!(ভিডিও সহ)

Published: আগ ১২, ২০১৮ - ১১:১৩ অপরাহ্ণ

বিশেষ প্রতিনিধি::আপনার আর মুক্তাদিরের জিন্দাবাদ রাজনীতির শিকার আমার বাতিজা। আমি অনেক ধৈর্য্য ধরেছি। আর পারছি না।আপনাদের প্রতিহিংসার রাজনীতির বলি হয়েছে আমার ভাতিজা। আপনাদের কারণেই সে খুন হল।

কান্নায় জড়িত কন্ঠে এমনটি বলছিলেন নিহত ছাত্রদল নেতা ফয়জুল হক রাজুর চাচা দবির আলী। রোববার দুপুরে ওসমানী হাসপাতালের মর্গের সামনে নবনির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে উদ্দেশ্য করে এমন ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

বিব্রত মেয়রের তখন ছেড়ে দে মা প্রানে বাচি অবস্থা।এ সময় উপস্তিত ছাত্রদল নেতারাও আরিফুল হকের প্রতি ক্ষোভ ঝাড়েন। রাজু হত্যার সাথে জড়িত থাকার দায়ে অভিযুক্ত ছাত্রদল নেতা আব্দুর রকিবের সাথে আরিফের সম্পর্কের বিষয়টি উল্লেখ করে উপস্থিত ছাত্রদল নেতারা বলেন- ‘রকিব আপনার ঘরেই থাকে। আপনি দুধকলা দিয়ে সাপ পোষছেন। আমরা কাজ করলাম। কিন্তু রেজাল্ট আনার পর কি হলো? এখন আপনি কি এ্যকশন নিচ্ছেন?’

নিহতের স্বজন ও ছাত্রদল নেতাদের অভিযোগে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন আরিফ। এসময় আরিফ গণমাধ্যমকে বলেন, আমার বিজয়কে কালিমালিপ্ত করতেই একটি গোষ্ঠি পরিকল্পিতভাবে এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। তিনি এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের বিচার দাবি করেন।

শনিবার রাতে নগরীর কুমারপাড়ায় আরিফুল হকের বাসার সামনে ছাত্রদলের প্রতিপক্ষ গ্রুপের গুলিতে খুন হন জেলা ছাত্রদলের সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক ফয়জুল হক রাজু। সন্ধ্যায় সিটি নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর আরিফুল হকের বিজয় মিছিল শেষে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এতে আরো দুই ছাত্রদল নেতা আহত হন। ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুর রকিব চৌধুরী এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। আব্দুর রকিব মেয়র আরিফের ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিত।

Facebook Comments

বিশেষ প্রতিনিধি::আপনার আর মুক্তাদিরের জিন্দাবাদ রাজনীতির শিকার আমার বাতিজা। আমি অনেক ধৈর্য্য ধরেছি। আর পারছি না।আপনাদের প্রতিহিংসার রাজনীতির বলি হয়েছে আমার ভাতিজা। আপনাদের কারণেই সে খুন হল।

কান্নায় জড়িত কন্ঠে এমনটি বলছিলেন নিহত ছাত্রদল নেতা ফয়জুল হক রাজুর চাচা দবির আলী। রোববার দুপুরে ওসমানী হাসপাতালের মর্গের সামনে নবনির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে উদ্দেশ্য করে এমন ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

বিব্রত মেয়রের তখন ছেড়ে দে মা প্রানে বাচি অবস্থা।এ সময় উপস্তিত ছাত্রদল নেতারাও আরিফুল হকের প্রতি ক্ষোভ ঝাড়েন। রাজু হত্যার সাথে জড়িত থাকার দায়ে অভিযুক্ত ছাত্রদল নেতা আব্দুর রকিবের সাথে আরিফের সম্পর্কের বিষয়টি উল্লেখ করে উপস্থিত ছাত্রদল নেতারা বলেন- ‘রকিব আপনার ঘরেই থাকে। আপনি দুধকলা দিয়ে সাপ পোষছেন। আমরা কাজ করলাম। কিন্তু রেজাল্ট আনার পর কি হলো? এখন আপনি কি এ্যকশন নিচ্ছেন?’

নিহতের স্বজন ও ছাত্রদল নেতাদের অভিযোগে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন আরিফ। এসময় আরিফ গণমাধ্যমকে বলেন, আমার বিজয়কে কালিমালিপ্ত করতেই একটি গোষ্ঠি পরিকল্পিতভাবে এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। তিনি এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের বিচার দাবি করেন।

শনিবার রাতে নগরীর কুমারপাড়ায় আরিফুল হকের বাসার সামনে ছাত্রদলের প্রতিপক্ষ গ্রুপের গুলিতে খুন হন জেলা ছাত্রদলের সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক ফয়জুল হক রাজু। সন্ধ্যায় সিটি নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর আরিফুল হকের বিজয় মিছিল শেষে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এতে আরো দুই ছাত্রদল নেতা আহত হন। ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুর রকিব চৌধুরী এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। আব্দুর রকিব মেয়র আরিফের ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিত।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর