প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা বাস্তবায়নের পথেঃসরকারী করন হচ্ছে মদনমোহন কলেজ…..

প্রতিদিন ডেস্কঃপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত সিলেটের মদনমোহন কলেজ সরকারিকরণ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে কলেজের স্বাবর-অস্থাবর সম্পত্তি সরকারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার মদন মোহন কলেজ হলরুমে সদর সাব-রেজিস্ট্রারের উপস্থিতিতে ডিড্ অব গিফ্ট এবং ঘোষণাপত্র দলিলনিবন্ধন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কলেজ কর্তৃপক্ষ নিষ্কণ্টক ১.৫৪২০ একর ভূমি ও স্থাপনা সচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ, শিক্ষামন্ত্রণালয় বরাবরে হস্তান্তর করেন। কলেজের পক্ষে গভর্ণিং বডির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ আবুল ফতেহ ফাত্তাহ দলিলে সই করেন। এছাড়া সিটি করপোরেশনের আওতাধীন ৩৩ শতক ভূমিও হস্তান্তরের কথা জানান সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। এসময় সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানও উপস্থিত ছিলেন। এ প্রক্রিয়ার মধ্যদিয়ে ৭৭ বছরের পুরনো মদনমোহন কলেজ সরকারিকরণের জন্য আনুষঙ্গিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলো।

অনুষ্ঠানে কলেজ গভর্ণিং বডির সভাপতি, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত তার লিখিত অভিভাষণে বলেন- আজ (বৃহস্পতিবার) মদনমোহন কলেজের জন্য ঐতিহাসিক পালাবদল মুহূর্ত। ৭৭ বছরের পুরনো মদনমোহন কলেজ প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত সরকারিকরণ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে সরকারের নিকট কলেজের স্থাবর-অস্থাবার সম্পত্তি ডিড্ অব গিফ্ট নিবন্ধন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শিক্ষাক্ষেত্রে অবদান রাখতে দৃঢ় প্রত্যয়ী। আনন্দঘন মুহূর্তে তিনি কলেজ অধ্যক্ষ সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান।

এসময় অর্থমন্ত্রী জানান- কলেজের প্রতিষ্ঠাতা দুই ভাই মোহিনীমোহন দাস ও যোগেন্দ্রমোহন দাসের নামে পুরনো মোহিনীমোহন ভবন ও যোগ্রেন্দ্রমোহন ভবনের স্থলে দুটি ১০ তলা ভবনের নির্মাণকাজ খুব শিগগিরই শুরু হবে। পৃথক ১০ তলা দুই ভবনে অডিটোরিয়ামসহ আনুষঙ্গিক সুযোগ-সুবিধা থাকবে। ইতোমধ্যে ভবন নির্মাণের প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছেও বলে তিনি জানান।

অনুষ্ঠানে কলেজের স্থাপনা, আসবাবপত্র, বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, বৃক্ষরাজি, এফডিআরসহ ব্যাংক হিসাবে গচ্ছিত নগদ অর্থ, নিষ্কণ্টক ভূমির সর্বমোটমূল্য তিরাশি কোটি সাঁইত্রিশ লক্ষ ষোল হাজার চারশত নয় টাকা চুয়াত্তর পয়সা নির্ধারণ করা হয়। এ  সাথে দখলীয় ভূমির বাজার মূল্য যুক্ত হলে এক কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলেও জানানো হয়। যা এখন সরকারের সম্পত্তি হিসেবে গণ্য হবে।এছাড়া অনুষ্ঠানে কলেজ প্রতিষ্ঠাতা, প্রতিষ্ঠাকালিন অধ্যক্ষ, প্রতিষ্ঠাকালিন সভাপতিসহ পরবর্তীতে যারা দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের স্মরণ করা হয়।

কলেজের অধ্যক্ষ ও পক্ষে গভর্ণিং বডির সদস্য সচিব আবুল ফতেহ ফাত্তাহ’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন-সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, বিজিৎ চৌধুরী। এছাড়া অনুভূূতি ব্যক্ত করে বক্তব্য রাখেন- কলেজের প্রতিষ্ঠাতা মোহিনীমোহন দাসের পুত্র সুখেন্দু বিকাশ দাস।

Facebook Comments

Leave a Reply