আজঃ ৮ই আশ্বিন ১৪২৫ - ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ - সকাল ৭:৪০

নগরীর ঘাসিটুলা থেকে বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার

Published: এপ্রি ১৬, ২০১৮ - ৫:৪১ অপরাহ্ণ

বিশেষ প্রতিনিধি::সিলেট নগরীর ঘাসিটুলার গাভিয়ার খাল থেকে পুলিশ বস্তাবন্দি অবস্থায় সোহাগ মিয়া (১৮) নামের এক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেছে। সোমবার (১৬ এপ্রিল) দুপুর দেড়টার দিকে পুলিশ স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করে।

নিহত সোহাগ বগুড়া জেলার জোকগাড়ি পূর্ব পাড়া গ্রামের আশরাফ মিয়ার ছেলে। বর্তমানে তারা সিলেট নগরের ঘাসিটুলাস্থ মজুমদার পাড়ার ময়না মিয়ার কলোনীতে বসবাস করে আসছে।

নিহতের পিতা আশরাফ মিয়া জানান, সোহাগ কাজিরবাজার মাছের আড়ৎতে কাজ করত। শুক্রবার রাতে সে বৈশাখের কাপড় কেনার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে গেলে আর ফিরে আসেনি। বিভিন্নস্থানে অনেক খোঁজাখুজির পরেও তার কোন সন্ধান পাইনি। সোমবার (১৬ এপ্রিল) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খবর পেয়ে গাভিয়ার খালে ছেলের লাশ সনাক্ত করি।

তিনি আরও জানান- দুই ভাই ও দুই বোনের মধ্যে সোহাগ ছিলে দ্বিতীয়। তার আয় দিয়ে কোনভাবে সংসার চলত।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালি থানার ওসি গৌছুল হোসেন জানান- প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে তার সহপাঠিরাই তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে রাতের আধাঁরে তার লাশ বস্তায় বন্দি করে খালের মাঝে ফেলে যায়। তার গলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

ময়নাতদন্ত রিপোর্টের জন্য তার লাশ ওসমানী হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর বিস্তারিত জানা যাবে।

Facebook Comments

বিশেষ প্রতিনিধি::সিলেট নগরীর ঘাসিটুলার গাভিয়ার খাল থেকে পুলিশ বস্তাবন্দি অবস্থায় সোহাগ মিয়া (১৮) নামের এক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেছে। সোমবার (১৬ এপ্রিল) দুপুর দেড়টার দিকে পুলিশ স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করে।

নিহত সোহাগ বগুড়া জেলার জোকগাড়ি পূর্ব পাড়া গ্রামের আশরাফ মিয়ার ছেলে। বর্তমানে তারা সিলেট নগরের ঘাসিটুলাস্থ মজুমদার পাড়ার ময়না মিয়ার কলোনীতে বসবাস করে আসছে।

নিহতের পিতা আশরাফ মিয়া জানান, সোহাগ কাজিরবাজার মাছের আড়ৎতে কাজ করত। শুক্রবার রাতে সে বৈশাখের কাপড় কেনার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে গেলে আর ফিরে আসেনি। বিভিন্নস্থানে অনেক খোঁজাখুজির পরেও তার কোন সন্ধান পাইনি। সোমবার (১৬ এপ্রিল) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খবর পেয়ে গাভিয়ার খালে ছেলের লাশ সনাক্ত করি।

তিনি আরও জানান- দুই ভাই ও দুই বোনের মধ্যে সোহাগ ছিলে দ্বিতীয়। তার আয় দিয়ে কোনভাবে সংসার চলত।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালি থানার ওসি গৌছুল হোসেন জানান- প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে তার সহপাঠিরাই তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে রাতের আধাঁরে তার লাশ বস্তায় বন্দি করে খালের মাঝে ফেলে যায়। তার গলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

ময়নাতদন্ত রিপোর্টের জন্য তার লাশ ওসমানী হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর বিস্তারিত জানা যাবে।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর