আজঃ ২৬শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫ - ১০ই ডিসেম্বর ২০১৮ - দুপুর ১:৪৮

তিন সিটির নির্বাচনে সিইসির সন্তোষ প্রকাশ

Published: জুলা ৩০, ২০১৮ - ৯:১৭ অপরাহ্ণ

প্রতিদিন ডেস্ক :: বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে বলে দাবি করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। তিন সিটি নির্বাচন নিয়ে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেটের ভোট শেষে সোমবার সন্ধ্যায় আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, আই এম স্যাটিসফাইড।’

সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে ভোটগ্রহণ হয়। তিন সিটির ৩৯৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৮টির ভোট বা ফল অনিয়ম ও গোলযোগের কারণে স্থগিত করা হয়।

অনিয়ম ও গোলযোগের কারণে বরিশালের একটি ও সিলেটের দুটি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়া অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বরিশালে ১৫টি কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে। তবে রাজশাহীতে কোনো কেন্দ্র স্থগিত হয়নি।

সিইসি বলেন, রাজশাহীতে ১৩৮টি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে। সিলেটে ১৩৪টির মধ্যে দুটি ছাড়া বাকিগুলোতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে। বরিশালে ১২৩টির মধ্যে সকালে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। ইসি তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা নিয়েছে।

নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ এনে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী মজিবুর রহমান সরওয়ার ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) প্রার্থী ডা. মনীষা চক্রবর্তীসহ কয়েকজন প্রার্থী বর্জন করেছেন। ভোট প্রত্যাখ্যান করে পুনরায় নির্বাচন দাবি করেছেন সিলেট সিটিতে বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী। এছাড়া রাজশাহীতে বিএনপির প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল নিজেই ভোট দেননি।

তিনটি সিটিতেই জালভোট ও ব্যালট ছিনতাই এবং দলীয় পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ করেন বিএনপির প্রার্থীরা।

এসব বিষয়ে সিইসি বলেন, কিছু অনিয়ম ছাড়া তিন সিটিতেই সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হয়েছে। আপনাদের (গণমাধ্যম) মাধ্যমে কিছু অভিযোগ শুনেছি। আমরা কেবল নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং অফিসার ও প্রিসাইডিং অফিসারের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যকে ধরতে পারি। সে হিসেবে ১৫টি কেন্দ্রে অনিয়মের তথ্য এসেছে। এসব কেন্দ্রে পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন আছে।

বরিশালে মেয়রপ্রার্থী ডা. মনীষার ওপর হামলার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছিল সার্বিক নিরাপত্তার জন্য। তিনি (ডা. মনীষা) মামলা করতে পারেন, আদালতের কাছে যেতে পারেন। অভিযোগ পেলে আমরাও তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।

Facebook Comments

প্রতিদিন ডেস্ক :: বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে বলে দাবি করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। তিন সিটি নির্বাচন নিয়ে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেটের ভোট শেষে সোমবার সন্ধ্যায় আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, আই এম স্যাটিসফাইড।’

সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে ভোটগ্রহণ হয়। তিন সিটির ৩৯৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৮টির ভোট বা ফল অনিয়ম ও গোলযোগের কারণে স্থগিত করা হয়।

অনিয়ম ও গোলযোগের কারণে বরিশালের একটি ও সিলেটের দুটি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়া অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বরিশালে ১৫টি কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে। তবে রাজশাহীতে কোনো কেন্দ্র স্থগিত হয়নি।

সিইসি বলেন, রাজশাহীতে ১৩৮টি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে। সিলেটে ১৩৪টির মধ্যে দুটি ছাড়া বাকিগুলোতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে। বরিশালে ১২৩টির মধ্যে সকালে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। ইসি তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা নিয়েছে।

নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ এনে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী মজিবুর রহমান সরওয়ার ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) প্রার্থী ডা. মনীষা চক্রবর্তীসহ কয়েকজন প্রার্থী বর্জন করেছেন। ভোট প্রত্যাখ্যান করে পুনরায় নির্বাচন দাবি করেছেন সিলেট সিটিতে বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী। এছাড়া রাজশাহীতে বিএনপির প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল নিজেই ভোট দেননি।

তিনটি সিটিতেই জালভোট ও ব্যালট ছিনতাই এবং দলীয় পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ করেন বিএনপির প্রার্থীরা।

এসব বিষয়ে সিইসি বলেন, কিছু অনিয়ম ছাড়া তিন সিটিতেই সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হয়েছে। আপনাদের (গণমাধ্যম) মাধ্যমে কিছু অভিযোগ শুনেছি। আমরা কেবল নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং অফিসার ও প্রিসাইডিং অফিসারের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যকে ধরতে পারি। সে হিসেবে ১৫টি কেন্দ্রে অনিয়মের তথ্য এসেছে। এসব কেন্দ্রে পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন আছে।

বরিশালে মেয়রপ্রার্থী ডা. মনীষার ওপর হামলার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছিল সার্বিক নিরাপত্তার জন্য। তিনি (ডা. মনীষা) মামলা করতে পারেন, আদালতের কাছে যেতে পারেন। অভিযোগ পেলে আমরাও তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর