আজঃ ২৯শে কার্তিক ১৪২৫ - ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ - সকাল ১১:৫১

চা শ্রমিক সন্তানদের উচ্চ শিক্ষায় বিশেষ উদ্যোগ নিল শাবি কর্তৃপক্ষ

Published: সেপ্টে ০৪, ২০১৮ - ৬:৩৪ অপরাহ্ণ

সিলেট প্রতিদিন :: চা জনগোষ্ঠীর জীবনমানের উন্নয়নে চা শ্রমিক সন্তানদের উচ্চ শিক্ষার সুযোগ করে দিতে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিশেষ কোটায় ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ থেকে চা জনগোষ্ঠীর চারজন শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ দেবে তারা।

মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। একই সাথে আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনে উপবৃত্তির ব্যবস্থাও করা হবে বলে জানান তিনি।

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়তে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে মূলধারায় সম্পৃক্ত করার বিকল্প নেই বলেও মন্তব্য করেন শাবি উপাচার্য।

তিনি বলেন, চায়ের দেশ সিলেটের সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী হচ্ছে চা শ্রমিক। তাদের সন্তানরা সুযোগের অভাবে উচ্চশিক্ষা থেকেও বঞ্চিত। কিন্তু সিলেট তথা দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি ও সুনাম বৃদ্ধিতে দেড় শতাধিক বছর থেকে যারা অবদান রেখে চলেছেন সেই চা জনগোষ্ঠীর সন্তানদের অধিকার আছে সিলেটের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাগ্রহণের। এসব দিক বিবেচনায় রেখেই শাবি এই উদ্যোগ নিয়েছে।

দেশে কোটা সংস্কারের চলমান প্রক্রিয়ার মধ্যেও এই উদ্যোগ গ্রহণের উদ্দেশ্য বলতে গিয়ে তিনি বলেন, যৌক্তিক যেকোনো দাবিকেই আমাদের বিবেচনা করতে হবে। শুধু চা শ্রমিক নয়, যেকোনো পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সামনে নিয়ে আসা আমাদের রাষ্ট্রীয় ও নৈতিক দায়িত্ব।

মঙ্গলবার দুপুরে শাবি উপাচার্যের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন সাথে সিলেট চা জনগোষ্ঠী ছাত্র যুব কল্যাণ পরিষদের নেতৃবৃন্দ। চা শ্রমিক সন্তানদের বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের উপযোগী করে গড়ে তোলতে তিনি তাদের আহ্বান জানান।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান আসম জাকারিয়া, বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, কারিতাস সিলেটের আলোঘর প্রকল্পের ব্যবস্থাপক পিউস নানোয়ার, জয় বাংলা ইয়ুথ এওয়ার্ড প্রাপ্ত সামাজিক সংগঠন স্বপ্ন কুঁড়ি সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বিজয় রুদ্র পাল, বাংলাদেশ চা জনগোষ্ঠী ছাত্র-যুব কল্যাণ পরিষদের সভাপতি দিলিপ রঞ্জন কুর্মী, বিশ্ববিদ্যালয় চা ছাত্র সংসদেও সভাপতি রাজু কুর্মী, দৈনিক আমাদের সময়ের সিলেট ব্যুরো প্রধান সজল ছত্রী প্রমুখ।

Facebook Comments

সিলেট প্রতিদিন :: চা জনগোষ্ঠীর জীবনমানের উন্নয়নে চা শ্রমিক সন্তানদের উচ্চ শিক্ষার সুযোগ করে দিতে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিশেষ কোটায় ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ থেকে চা জনগোষ্ঠীর চারজন শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ দেবে তারা।

মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। একই সাথে আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনে উপবৃত্তির ব্যবস্থাও করা হবে বলে জানান তিনি।

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়তে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে মূলধারায় সম্পৃক্ত করার বিকল্প নেই বলেও মন্তব্য করেন শাবি উপাচার্য।

তিনি বলেন, চায়ের দেশ সিলেটের সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী হচ্ছে চা শ্রমিক। তাদের সন্তানরা সুযোগের অভাবে উচ্চশিক্ষা থেকেও বঞ্চিত। কিন্তু সিলেট তথা দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি ও সুনাম বৃদ্ধিতে দেড় শতাধিক বছর থেকে যারা অবদান রেখে চলেছেন সেই চা জনগোষ্ঠীর সন্তানদের অধিকার আছে সিলেটের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাগ্রহণের। এসব দিক বিবেচনায় রেখেই শাবি এই উদ্যোগ নিয়েছে।

দেশে কোটা সংস্কারের চলমান প্রক্রিয়ার মধ্যেও এই উদ্যোগ গ্রহণের উদ্দেশ্য বলতে গিয়ে তিনি বলেন, যৌক্তিক যেকোনো দাবিকেই আমাদের বিবেচনা করতে হবে। শুধু চা শ্রমিক নয়, যেকোনো পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সামনে নিয়ে আসা আমাদের রাষ্ট্রীয় ও নৈতিক দায়িত্ব।

মঙ্গলবার দুপুরে শাবি উপাচার্যের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন সাথে সিলেট চা জনগোষ্ঠী ছাত্র যুব কল্যাণ পরিষদের নেতৃবৃন্দ। চা শ্রমিক সন্তানদের বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের উপযোগী করে গড়ে তোলতে তিনি তাদের আহ্বান জানান।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান আসম জাকারিয়া, বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, কারিতাস সিলেটের আলোঘর প্রকল্পের ব্যবস্থাপক পিউস নানোয়ার, জয় বাংলা ইয়ুথ এওয়ার্ড প্রাপ্ত সামাজিক সংগঠন স্বপ্ন কুঁড়ি সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বিজয় রুদ্র পাল, বাংলাদেশ চা জনগোষ্ঠী ছাত্র-যুব কল্যাণ পরিষদের সভাপতি দিলিপ রঞ্জন কুর্মী, বিশ্ববিদ্যালয় চা ছাত্র সংসদেও সভাপতি রাজু কুর্মী, দৈনিক আমাদের সময়ের সিলেট ব্যুরো প্রধান সজল ছত্রী প্রমুখ।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর