আজঃ ১১ই আশ্বিন ১৪২৫ - ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ - দুপুর ১:৫০

গোলাপগঞ্জ পৌরসভার উপ নির্বাচন : প্রার্থীদের দৌড় ঝাপ শুরু

Published: সেপ্টে ০৫, ২০১৮ - ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

সাকিব আল মামুন, গোলাপগঞ্জ :: সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পদে উপ-নির্বাচনের তফসীল ঘোষণার পর পরই পৌর শহরে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। পৌর শহরের প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় চলছে নির্বাচনী আলাপচারিতা। চায়ের দোকান, মুদির দোকান, পাড়ার অলিগলি সবজায়গায় নির্বাচন প্রসঙ্গ। উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পৌর এলাকা জুড়ে প্রার্থীদের দৌড়-ঝাঁপ লক্ষ্য করা যায়। বেশ কয়েকজন প্রার্থী প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন। মেয়র পদে সম্ভাব্য প্রার্থীদের ব্যানার, ফেস্টুনে ছেয়ে যাচ্ছে নির্বাচনী এলাকা।

প্রার্থীরা পৌর এলাকার ভোটারদের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে নিজের উপস্থিতি জানান দিচ্ছেন তারা। ভোটারাও উৎফুল্ল মনে নির্বাচনী আলোচনায় মহাব্যস্থ। কিন্তু কে হচ্ছেন পৌর পিতা? কার হাতে দায়িত্ব যাবে গোলাপগঞ্জ পৌর সভার? এসব নানান প্রশ্ন পৌরবাসী সাধারণ ভোটাররে মধ্যে।

উপ-নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার দলীয় প্রার্থীদের পাশাপাশি প্রচার প্রচারণায় বিএনপি সমর্থিতরাও পিছিয়ে নেই এমনটাই শুনা যায় পৌর ভোটারদের কাছ থেকে। ইতিমধ্যে জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহের আহবান করা হয়েছে।

আরও পড়ুন : গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পদে উপনির্বাচন : বিএনপির মনোনয়ন সংগ্রহের আহ্বান

এদিকে- ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গোলাপগঞ্জ উপজেলা ও পৌর শাখার উদ্যোগে এক বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বর্ধিত সভায় বিভিন্ন পর্যায়ের ৭ ব্যক্তি নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। পরে আলাপ আলোচনা শেষে তিন প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। এই তিনজনের একজনের হাতেই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন উঠবে। ওই তিন নেতারা হচ্ছেন- সাবেক মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া আহমদ পাপলু, যুক্তরাজ্য আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা আমিরুল ইসলাম রাবেল ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রুয়েল আহমদ।

আরও পড়ুন : গোলাপগঞ্জে মেয়র পদে নির্বাচন : কেন্দ্রে যাচ্ছে আওয়ামী লীগের ৩ মনোনয়নপ্রত‌্যাশীর নাম

এছাড়া বিএনপি থেকে নির্বাচন করতে জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি ও উপজেলা বিএনপি’র সাবেক আহবায়ক মহিউস্সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস, পৌর বিএনপি নেতা গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহিন, মশিকুর রহমান মহি মূখিয়ে আছেন বলে জানা গেছে।

এছাড়া পিছিয়ে নেই খেলাফত মজলিস নেতা আমিনুল ইসলাম আমিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বিশিষ্ট সমাজসেবক আমিনুর রহমান লিপন। তাঁরাও জানান দিচ্ছেন মেয়র পদে নির্বাচন করতে।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দলীয় সূত্র জানিয়েছে- দলীয় প্রতীক পেতে তদবির করে যাচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। প্রার্থীরা ইতিমধ্যে কেন্দ্রে যোগাযোগ বৃদ্ধি করেছেন। কেন্দ্র থেকে দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হলে কার হাতে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকা আর বিএনপির দলীয় প্রতীক ধানের শীষ উঠছে।

নির্বাচন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু সিলেটপ্রতিদিনকে বলেন- দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি পৌরবাসীর আমানত নিয়ে পুনরায় মেয়র নির্বাচিত হয়ে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখবো।

বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি উপজেলা বিএনপি’র সাবেক আহবায়ক মহিউস্সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস সিলেটপ্রতিদিনকে বলেন- আমি এলাকার মানুষের মতামত নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আশা করছি সিদ্ধান্তে অটুট থাকবো।

আরও পড়ুন : ৩ অক্টোবর গোলাপগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন

নির্বাচনী সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে আগামী ৩ অক্টোবর কে পৌর পিতা নির্বাচিত হবেন তা দেখার বিষয়।

উল্লেখ্য, পৌর মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী ৩১শে মে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। গত ১১ জুলাই মেয়র পদটি শূন্য ঘোষণা করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় । মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) নির্বাচন কমিশন গোলাপগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনের দিনক্ষণ জানায়। আগামী ৩ অক্টোবর নির্বাচনের ভোট গ্রহণ হবে।

Facebook Comments

সাকিব আল মামুন, গোলাপগঞ্জ :: সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পদে উপ-নির্বাচনের তফসীল ঘোষণার পর পরই পৌর শহরে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। পৌর শহরের প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় চলছে নির্বাচনী আলাপচারিতা। চায়ের দোকান, মুদির দোকান, পাড়ার অলিগলি সবজায়গায় নির্বাচন প্রসঙ্গ। উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পৌর এলাকা জুড়ে প্রার্থীদের দৌড়-ঝাঁপ লক্ষ্য করা যায়। বেশ কয়েকজন প্রার্থী প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছেন। মেয়র পদে সম্ভাব্য প্রার্থীদের ব্যানার, ফেস্টুনে ছেয়ে যাচ্ছে নির্বাচনী এলাকা।

প্রার্থীরা পৌর এলাকার ভোটারদের খোঁজ-খবর নিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে নিজের উপস্থিতি জানান দিচ্ছেন তারা। ভোটারাও উৎফুল্ল মনে নির্বাচনী আলোচনায় মহাব্যস্থ। কিন্তু কে হচ্ছেন পৌর পিতা? কার হাতে দায়িত্ব যাবে গোলাপগঞ্জ পৌর সভার? এসব নানান প্রশ্ন পৌরবাসী সাধারণ ভোটাররে মধ্যে।

উপ-নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার দলীয় প্রার্থীদের পাশাপাশি প্রচার প্রচারণায় বিএনপি সমর্থিতরাও পিছিয়ে নেই এমনটাই শুনা যায় পৌর ভোটারদের কাছ থেকে। ইতিমধ্যে জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহের আহবান করা হয়েছে।

আরও পড়ুন : গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পদে উপনির্বাচন : বিএনপির মনোনয়ন সংগ্রহের আহ্বান

এদিকে- ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গোলাপগঞ্জ উপজেলা ও পৌর শাখার উদ্যোগে এক বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বর্ধিত সভায় বিভিন্ন পর্যায়ের ৭ ব্যক্তি নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। পরে আলাপ আলোচনা শেষে তিন প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। এই তিনজনের একজনের হাতেই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন উঠবে। ওই তিন নেতারা হচ্ছেন- সাবেক মেয়র উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া আহমদ পাপলু, যুক্তরাজ্য আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা আমিরুল ইসলাম রাবেল ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রুয়েল আহমদ।

আরও পড়ুন : গোলাপগঞ্জে মেয়র পদে নির্বাচন : কেন্দ্রে যাচ্ছে আওয়ামী লীগের ৩ মনোনয়নপ্রত‌্যাশীর নাম

এছাড়া বিএনপি থেকে নির্বাচন করতে জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি ও উপজেলা বিএনপি’র সাবেক আহবায়ক মহিউস্সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস, পৌর বিএনপি নেতা গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহিন, মশিকুর রহমান মহি মূখিয়ে আছেন বলে জানা গেছে।

এছাড়া পিছিয়ে নেই খেলাফত মজলিস নেতা আমিনুল ইসলাম আমিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বিশিষ্ট সমাজসেবক আমিনুর রহমান লিপন। তাঁরাও জানান দিচ্ছেন মেয়র পদে নির্বাচন করতে।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দলীয় সূত্র জানিয়েছে- দলীয় প্রতীক পেতে তদবির করে যাচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। প্রার্থীরা ইতিমধ্যে কেন্দ্রে যোগাযোগ বৃদ্ধি করেছেন। কেন্দ্র থেকে দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হলে কার হাতে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকা আর বিএনপির দলীয় প্রতীক ধানের শীষ উঠছে।

নির্বাচন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু সিলেটপ্রতিদিনকে বলেন- দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি পৌরবাসীর আমানত নিয়ে পুনরায় মেয়র নির্বাচিত হয়ে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখবো।

বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি উপজেলা বিএনপি’র সাবেক আহবায়ক মহিউস্সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস সিলেটপ্রতিদিনকে বলেন- আমি এলাকার মানুষের মতামত নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আশা করছি সিদ্ধান্তে অটুট থাকবো।

আরও পড়ুন : ৩ অক্টোবর গোলাপগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন

নির্বাচনী সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে আগামী ৩ অক্টোবর কে পৌর পিতা নির্বাচিত হবেন তা দেখার বিষয়।

উল্লেখ্য, পৌর মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী ৩১শে মে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। গত ১১ জুলাই মেয়র পদটি শূন্য ঘোষণা করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় । মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) নির্বাচন কমিশন গোলাপগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনের দিনক্ষণ জানায়। আগামী ৩ অক্টোবর নির্বাচনের ভোট গ্রহণ হবে।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর