আজঃ ৫ই পৌষ ১৪২৫ - ১৯শে ডিসেম্বর ২০১৮ - রাত ৮:৫০

গোলাপগঞ্জ পৌরসভার উপ-নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ ভাবে চলছে ভোট গ্রহণ

Published: অক্টো ০৩, ২০১৮ - ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ

গোলাপগঞ্জ সংবাদদাতা::শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পদে উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে।

বুধবার (৩ অক্টোবর) সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ উপলক্ষে নির্বাচনী এলাকায় ঘোষণা করা হয়েছে সাধারণ ছুটি। এদিকে, গোটা পৌর এলাকাকে চার স্থরের নিরাপত্তা বলয়ে আবৃত রাখা হয়েছে। সর্তক অবস্থায় রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

উপ-নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ব্যতীত আর কোন রাজনৈতিক দল ভোটের লড়াইয়ে মাঠে থাকছে না তা আগেই পরিষ্কার হয়ে গেছে। এ নির্বাচনে বিএনপি তাদের প্রার্থী দিলেও মনোনয়ন যাচাই বাছাইয়ে তাদের প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়ে যায়।

এদিকে এ ভোটের লড়াইয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু ছাড়াও রয়েছেন তিন স্বতন্ত্র প্রার্থী। তারা হলেন, জগ প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রাবেল। মোবাইল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহিন। তিনি এ পৌরসভার সর্বশেষ নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন। নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মহিউস সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস।

৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা ২১হাজার ৬শত ৩২জন। তারমধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১০হাজার ৯শত ৫৮জন ও মহিলা ভোটার সংখ্যা ১০হাজার ৬শত ৭৪জন।

জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও পৌরসভা উপ-নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা খোরশেদ আলম জানান, পৌর নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশন যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ছিলেন জাকারিয়া আহমদ পাপলু। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক প্রয়াত মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী। এই নির্বাচনে সিরাজুল জব্বার চৌধুরী বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন। গত ৩১ মে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী মৃত্যুবরণ করায় মেয়র পদটি শূন্য হয়।

Facebook Comments

গোলাপগঞ্জ সংবাদদাতা::শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পদে উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে।

বুধবার (৩ অক্টোবর) সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ উপলক্ষে নির্বাচনী এলাকায় ঘোষণা করা হয়েছে সাধারণ ছুটি। এদিকে, গোটা পৌর এলাকাকে চার স্থরের নিরাপত্তা বলয়ে আবৃত রাখা হয়েছে। সর্তক অবস্থায় রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

উপ-নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ব্যতীত আর কোন রাজনৈতিক দল ভোটের লড়াইয়ে মাঠে থাকছে না তা আগেই পরিষ্কার হয়ে গেছে। এ নির্বাচনে বিএনপি তাদের প্রার্থী দিলেও মনোনয়ন যাচাই বাছাইয়ে তাদের প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়ে যায়।

এদিকে এ ভোটের লড়াইয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু ছাড়াও রয়েছেন তিন স্বতন্ত্র প্রার্থী। তারা হলেন, জগ প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রাবেল। মোবাইল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহিন। তিনি এ পৌরসভার সর্বশেষ নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন। নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মহিউস সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস।

৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা ২১হাজার ৬শত ৩২জন। তারমধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১০হাজার ৯শত ৫৮জন ও মহিলা ভোটার সংখ্যা ১০হাজার ৬শত ৭৪জন।

জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও পৌরসভা উপ-নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা খোরশেদ আলম জানান, পৌর নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশন যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ছিলেন জাকারিয়া আহমদ পাপলু। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক প্রয়াত মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী। এই নির্বাচনে সিরাজুল জব্বার চৌধুরী বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন। গত ৩১ মে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী মৃত্যুবরণ করায় মেয়র পদটি শূন্য হয়।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর