আজঃ ২৬শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫ - ১০ই ডিসেম্বর ২০১৮ - রাত ২:৪৮

কাঁদলেন মেয়র আরিফ!

Published: নভে ১৫, ২০১৮ - ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

সিলেট প্রতিদিন :: কাঁদলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। মঙ্গলবার নগরীর জিন্দাবাজারে একটি প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এক কণ্ঠশিল্পীর গান শুনে তিনি আবেগে আপ্লুত হয়ে কেঁদে ফেলছেন। মেয়র প্রতিবন্ধী শিল্পী রিয়াজ উদ্দিনের গাওয়া একটি গান শোনে তিনি মুগ্ধ হন। ওই প্রতিবন্ধী শিল্পীর মধ্যে যে প্রতিভা রয়েছে সত্যি তা প্রশংসনীয়। সুস্থ সবল শিল্পীদের মত সুনামগঞ্জ জেলার দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রিয়াজ উদ্দিন তার লিখা একটি গান “জন্মে ছিলাম ভালো, হয়েছি অন্ধ” পরিবেশ করে। তিনি বলেন, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা অবহেলিত নয়। তাদের মধ্যেও মেধা ও প্রতিভা রয়েছে। সেই মেধা ও প্রতিভাকে আরো সমৃদ্ধ করতে বেশি বেশি করে প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা দরকার।

গ্রীন ডিজএ্যাবলড ফাউন্ডেশন (জিডিএফ) এর আয়োজনে, বেঙ্গল এ্যাডভাটিজিং এর সহযোগিতায় বাংলাদেশের মধ্যে সিলেটে প্রথম বারের মত আয়োজন করা হয় শ্রেষ্ঠ প্রতিবন্ধী কণ্ঠশিল্পী প্রতিযোগিতায়-২০১৮।

১৩ নভেম্বর সোমবার সকাল ১০টা থেকে নগরীর জল্লারপাড় রোডের পশ্চিম জিন্দাবাজারস্থ হাসন রাজা জাদুঘর সংলগ্ন গ্রীন ডিজএ্যাবলড ফাউন্ডেশন (জিডিএফ) এর কার্যলয় প্রাঙ্গণে বিভাগের বিভিন্ন উপজেলা থেকে আগত কণ্ঠশিল্পী ও সাথে থাকা অভিভাবকগণ জড়ো হন। উৎসব মুখর পরিবেশে দিনব্যাপী প্রতিযোগিতা চলে। প্রতিযোগিতায় ৭০ জন প্রতিযোগি দুটি বিভাগে বাছাই পর্বের অডিশন রাউন্ড অংশ নেয়। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন সিলেট বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী হিমাংশ বিশ্বাস, বিশিষ্ট রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী অনিমেষ বিজয় চৌধুরী, সংগীত শিল্পী রাজিয়া সুলতানা লাভলী লস্কর এর রায়ে ১৮ জন প্রতিযোগিকে চূড়ান্ত পর্ব গ্রান্ড ফাইনালের জন্য মনোনিত করা হয়।

আলাপকালে শ্রেষ্ঠ প্রতিবন্ধী কণ্ঠশিল্পী প্রতিযোগিতা বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক বায়েজিদ খান বলেন, বাংলাদেশের মধ্যে সিলেটে প্রথম শ্রেষ্ঠ প্রতিবন্ধী কণ্ঠশিল্পী প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি। অনুষ্ঠানটি সিলেটে ব্যাপক সাড়া পেয়েছে এবং বিভাগের বিভিন্ন উপজেলা থেকে অসংখ্য প্রতিবন্ধী শিল্পীরা অংশ গ্রহণ করে। বিকাল পর্যন্ত সুন্দর ও সুশৃঙ্খলার সাথে অনুষ্ঠান শেষ হয়েছে। অনুষ্ঠান সফল ও সার্থক করতে সিলেটের বিশিষ্টজন, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ প্রচার-প্রচারণার মাধ্যমে যে সহযোগিতা করেছেন তার জন্য বাস্তবায়ন কমিটির পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আমি বিশ্বাস করি এ প্রতিযোগিতা একদিন জাতীয় স্বীকৃতি পাবে।

উল্লেখ্য, আগামী ১৬ নভেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় রিকাবীবাজার কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে চুড়ান্ত মনোনিতদের নিয়ে গ্রান্ড ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী প্রতিযোগিতার ৩টি স্টল পরিদর্শন করেন এবং পরে এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নের সাথে সাথে প্রতিবন্ধীদেরকে এগিয়ে নিতে হবে। প্রতিবন্ধীরা বোঝা বা অবহেলিত নয়। তারা এ দেশের সম্পদ। তাদেরকে স্বাবলম্বী করে এগিয়ে নিতে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

সিলেট প্রতিদিন/১৫নভেম্বর ২০১৮/জেকে

Facebook Comments

সিলেট প্রতিদিন :: কাঁদলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। মঙ্গলবার নগরীর জিন্দাবাজারে একটি প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এক কণ্ঠশিল্পীর গান শুনে তিনি আবেগে আপ্লুত হয়ে কেঁদে ফেলছেন। মেয়র প্রতিবন্ধী শিল্পী রিয়াজ উদ্দিনের গাওয়া একটি গান শোনে তিনি মুগ্ধ হন। ওই প্রতিবন্ধী শিল্পীর মধ্যে যে প্রতিভা রয়েছে সত্যি তা প্রশংসনীয়। সুস্থ সবল শিল্পীদের মত সুনামগঞ্জ জেলার দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রিয়াজ উদ্দিন তার লিখা একটি গান “জন্মে ছিলাম ভালো, হয়েছি অন্ধ” পরিবেশ করে। তিনি বলেন, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা অবহেলিত নয়। তাদের মধ্যেও মেধা ও প্রতিভা রয়েছে। সেই মেধা ও প্রতিভাকে আরো সমৃদ্ধ করতে বেশি বেশি করে প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা দরকার।

গ্রীন ডিজএ্যাবলড ফাউন্ডেশন (জিডিএফ) এর আয়োজনে, বেঙ্গল এ্যাডভাটিজিং এর সহযোগিতায় বাংলাদেশের মধ্যে সিলেটে প্রথম বারের মত আয়োজন করা হয় শ্রেষ্ঠ প্রতিবন্ধী কণ্ঠশিল্পী প্রতিযোগিতায়-২০১৮।

১৩ নভেম্বর সোমবার সকাল ১০টা থেকে নগরীর জল্লারপাড় রোডের পশ্চিম জিন্দাবাজারস্থ হাসন রাজা জাদুঘর সংলগ্ন গ্রীন ডিজএ্যাবলড ফাউন্ডেশন (জিডিএফ) এর কার্যলয় প্রাঙ্গণে বিভাগের বিভিন্ন উপজেলা থেকে আগত কণ্ঠশিল্পী ও সাথে থাকা অভিভাবকগণ জড়ো হন। উৎসব মুখর পরিবেশে দিনব্যাপী প্রতিযোগিতা চলে। প্রতিযোগিতায় ৭০ জন প্রতিযোগি দুটি বিভাগে বাছাই পর্বের অডিশন রাউন্ড অংশ নেয়। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন সিলেট বিশিষ্ট সংগীত শিল্পী হিমাংশ বিশ্বাস, বিশিষ্ট রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী অনিমেষ বিজয় চৌধুরী, সংগীত শিল্পী রাজিয়া সুলতানা লাভলী লস্কর এর রায়ে ১৮ জন প্রতিযোগিকে চূড়ান্ত পর্ব গ্রান্ড ফাইনালের জন্য মনোনিত করা হয়।

আলাপকালে শ্রেষ্ঠ প্রতিবন্ধী কণ্ঠশিল্পী প্রতিযোগিতা বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক বায়েজিদ খান বলেন, বাংলাদেশের মধ্যে সিলেটে প্রথম শ্রেষ্ঠ প্রতিবন্ধী কণ্ঠশিল্পী প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি। অনুষ্ঠানটি সিলেটে ব্যাপক সাড়া পেয়েছে এবং বিভাগের বিভিন্ন উপজেলা থেকে অসংখ্য প্রতিবন্ধী শিল্পীরা অংশ গ্রহণ করে। বিকাল পর্যন্ত সুন্দর ও সুশৃঙ্খলার সাথে অনুষ্ঠান শেষ হয়েছে। অনুষ্ঠান সফল ও সার্থক করতে সিলেটের বিশিষ্টজন, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ প্রচার-প্রচারণার মাধ্যমে যে সহযোগিতা করেছেন তার জন্য বাস্তবায়ন কমিটির পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আমি বিশ্বাস করি এ প্রতিযোগিতা একদিন জাতীয় স্বীকৃতি পাবে।

উল্লেখ্য, আগামী ১৬ নভেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় রিকাবীবাজার কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে চুড়ান্ত মনোনিতদের নিয়ে গ্রান্ড ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী প্রতিযোগিতার ৩টি স্টল পরিদর্শন করেন এবং পরে এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নের সাথে সাথে প্রতিবন্ধীদেরকে এগিয়ে নিতে হবে। প্রতিবন্ধীরা বোঝা বা অবহেলিত নয়। তারা এ দেশের সম্পদ। তাদেরকে স্বাবলম্বী করে এগিয়ে নিতে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

সিলেট প্রতিদিন/১৫নভেম্বর ২০১৮/জেকে

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর