উদীচী সিলেটের রুশ বিপ্লবের শতবর্ষ উদযাপন

sylhetprotidin24

সিলেট:: ‘একসাথে চল গড়বো মোরা রাঙা দুনিয়া’কিংবা ‘গ্রাম থেকে জেগে উঠো, শহর থেকে জেগে উঠো’ এ রকম আহ্বানের মধ্যদিয়ে রুশ বিপ্লবের শতবর্ষ উদযাপন করলো উদীচী সিলেট। মঙ্গলবার বিকালে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এক সাংস্কৃতিক সমাবেশের মাধ্যমে রুশ বিল্পবের শতবর্ষ উদযাপন করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য প্রদান করেন রুশ বিপ্লব শতবর্ষ উদযাপন পরিষদ সিলেটের সদস্য সচিব ও সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবুল কাশেম। তিনি রুশ বিপ্লবের ইতিহাস ও বর্তমান প্রেক্ষিতে এর গুরুত্ব তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, মেহনতি মানুষের অধিকারের দাবীতে আজও বিপ্লবের বিকল্প নেই। শোষণ বঞ্চনার প্রতিবাদে মানুষকে সবদিক দিয়ে জেগে উঠতে হবে। সোচ্চার হতে হবে নিজের অধিকার নিয়ে, পুজিবাদের বিকল্প সাম্যবাদ কিংবা সমাজতান্ত্রিক সমাজ প্রতিষ্ঠা না করতে পারলে সাধারণ মানুষের মুক্তি নেই।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সহ-সভাপতি ব্যরিস্টার আরশ আলী। উদীচী সিলেটের সভাপতি কবি একে শেরামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ড. অভিজিৎ দাসের পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন কমিউনিস্ট পার্টি সিলেটের নেতা ড. বীরেন্দ্র দেব, সদর উপজেলার শিক্ষা কর্মকতা পুলিন রায়, সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সভাপতি মিশফাক আহমেদ মিশু, সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত, যুব ইউনিয়ন সিলেটের সভাপতি খায়রুল আলম, নারী নেত্রী ইন্দ্রাণী সেন শম্পা, উদীচী সিলেটের সহ-সভাপতি এনায়েত হাসান মানিক, সৈয়দ মনির হেলাল, মাধব রায়, ছাত্রইউনিয়নসহ প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

উদীচী সিলেট জেলা সংসদের শিল্পীবৃন্দ পরিবেশন করেন ‘চলছে গ্রহনের কাল’ নামের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। গানে গানে মানুষের মুক্তির কথা, মুক্তিবুদ্ধি ও মুক্তচিন্তার কথা, মুক্তিযুদ্ধের কথা, অধিকারহীন, শোষণ বঞ্চনার শিকার মেহনতি মানুষের কথা একে একে তুলে ধরেন। সংগীত পরিবেশনায় ছিলেন ড. অভিজিৎ দাস জয়, হিতাংশু ভুষণ কর, সুদিপ্ত দেব স্বর্ণা, পুতুল, ঝুমুর, সুমা, সন্দিপ দেব, সিদ্ধার্থ দে, ইমু, পল্টু প্রমুখ।

বর্তমান সময় পুজিবাদ থেকে সমাজতন্ত্র ও সাম্যবাদের উত্তরণের যুগ। ১৯১৭ সালে জারের পতন ঘটিয়ে শাসনবার গ্রহণ করেছিল লেলিনের নেতৃত্বে সমাজতান্ত্রিক সরকার। শ্রমিক মেহনতি মানুষের মুক্তির লক্ষে সমস্ত রাশিয়া জোড়ে বিদ্রোহ ছড়িয়ে পড়ে। বিপ্লব বিদ্রোহে লেলিনের আহ্বান মানুষকে রাস্তায় নামিয়ে নিয়ে আসে। গড়ে উঠে সমাজতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা। যদিও আজ রাশিয়ায় সোভিয়েত ইউনিয়নের অস্তিস্ত¡ নেই বললেই চলে। কিন্তু বিশ্বের প্রগতি আন্দোলনের স্বপ্নদ্রষ্টারা আজও সমাজতান্ত্রিক সমাজের জন্য বিপ্লব বিদ্রোহ করে যাচ্ছে। তাই রুশ বিপ্লবের একশত বছর পরও দেশে দেশে এই বিপ্লবকে সম্মান জানানো হচ্ছে। এইবার প্রথম উদীচী সিলেট রুশ বিপ্লবের দিবসটি উদযাপন করলো।

Facebook Comments

Leave a Reply