আজঃ ৩রা পৌষ ১৪২৫ - ১৭ই ডিসেম্বর ২০১৮ - সকাল ৭:৪২

আসামের পর এবার মুম্বাইয়ে বাংলাদেশি খুঁজছে বিজেপি

Published: অক্টো ১৩, ২০১৮ - ১২:১৬ অপরাহ্ণ

প্রতিদিন ডেস্ক :: জাতীয় নাগরিকপঞ্জী বা এন আরসি নিয়ে আসামে তুমুল বিতর্কের মধ্যেই এবার হঠাৎ ভারতের অন্য রাজ্যেও অবৈধ বিদেশিদের শনাক্ত করার দাবি তুলছে বিজেপিসহ শরিক দলগুলো।

মুম্বাইয়ের কথিত অবৈধ বাংলাদেশীদের ভারতছাড়া করার দাবি উঠছে প্রকাশ্যেই।

কিন্তু এ ইস্যু নিয়ে ভারতের বাণিজ্যিক রাজধানী কি আদৌ চিন্তিত, না কি দেশে ভোটের আগে শ্রমজীবী এই গরিব মানুষগুলোকে আরও একবার রাজনৈতিক বলির পাঁঠা বানানোর চেষ্টা চলছে?

আরব সাগরের তীরে নতুন করে এই বাংলাদেশী তাড়ানোর ডাক ওঠায় শহরের বাংলাভাষী মুসলিমরাই সবচেয়ে বেশি চিন্তিত। কারণ মোদি সরকার নির্বাচনের মাঠে তাদেরই প্রধান বাধা মনে করছে।

মুম্বাইয়ের দক্ষিণতম প্রান্তে চার্চগেট স্টেশন থেকে ছাড়া যে লোকল ট্রেনগুলো শহরের লাইফলাইন হিসেবে কাজ করে, তার অনেকগুলোরই রুটের একেবারে শেষপ্রান্তে শহরতলির ভায়ান্দার স্টেশন।

আর সেই স্টেশন থেকে একটু দূরেই শহরের গরিবগর্বা মানুষের এক বিশাল কলোনি, লোকের মুখে মুখে যার নাম ‘বাংলাদেশ বস্তি’।

সম্প্রতি ভায়ান্দারের এই বস্তির নাম উঠে এসেছে দিল্লির কনস্টিটিউশন ক্লাবের আলোচনাতেও।

শাসক বিজেপির ভাইস-প্রেসিডেন্ট ও এমপি বিনয় সহস্রবুদ্ধে জানান, বাংলাদেশ থেকে অসংখ্য লোকজন অবৈধভাবে ভারতে ঢুকে ভায়ান্দারে পাড়ি দিচ্ছে।

মুম্বাইয়ের আশেপাশে টিলা-জঙ্গলগুলো দখল করে তারা গড়ে তুলছে বসতি, চালাচ্ছে নানা বেআইনি ধান্দা। এমন কী পুলিশ হানা দিতে গেলেও তাদের পাথর ছুঁড়ে তাড়িয়ে দিচ্ছে এই বাংলাদেশীরা!

বিজেপির এ দাপুটে নেতার হুঁশিয়ারি, অবৈধ বাংলাদেশীর সমস্যা শুধু আসামের নয় – মুম্বাইসহ গোটা দেশেই তা ‘টাইম বোমার মতো টিক-টিক’ করছে।

তার দলের সভাপতি অমিত শাহ তো আরও একধাপ এগিয়ে ভারতে থাকা বাংলাদেশীদের কখনও অনুপ্রবেশকারী আবার কখনও উইপোকা বলেও গালাগাল করছেন।

কিন্তু যেমনটা তারা বলছেন, সত্যিই কি বাংলাদেশীরা ছেয়ে ফেলছেন মুম্বাই শহরতলির বস্তিগুলো?

ভায়ান্দারের তথাকথিত ‘বাংলাদেশ বস্তি’তে খোঁজখবর করতে গিয়ে কিন্তু চমকের পর চমক। বস্তির বাসিন্দা ঊষা, মুকেশরা জানাচ্ছেন তাদের কলোনির নাম বাংলাদেশের নামে হলেও সেখানে একঘর বাঙালি পর্যন্ত নেই।

বরং বাইরের একটা দেশের নামে কেন তাদের কলোনির নাম, সেটাই তাদের এতদিন ভাবিয়ে এসেছে।
আরও পুরনো বাসিন্দাদের কাছে খোঁজখবর করতে গিয়ে জানা গেল, চল্লিশ-পঞ্চাশ বছর আগে যখন পুরনো ঝোপড়পট্টি ভেঙে এই কলোনি গড়ে তোলা হয়, তখন বাংলাদেশ যুদ্ধে জেতার সম্মানেই কিন্তু বস্তির নামকরণ করা হয়েছিল বাংলাদেশের নামে। কিন্তু না, কোনওদিন কোনও বাঙালি এই তল্লাটে কখনওই ছিল না।

Facebook Comments

প্রতিদিন ডেস্ক :: জাতীয় নাগরিকপঞ্জী বা এন আরসি নিয়ে আসামে তুমুল বিতর্কের মধ্যেই এবার হঠাৎ ভারতের অন্য রাজ্যেও অবৈধ বিদেশিদের শনাক্ত করার দাবি তুলছে বিজেপিসহ শরিক দলগুলো।

মুম্বাইয়ের কথিত অবৈধ বাংলাদেশীদের ভারতছাড়া করার দাবি উঠছে প্রকাশ্যেই।

কিন্তু এ ইস্যু নিয়ে ভারতের বাণিজ্যিক রাজধানী কি আদৌ চিন্তিত, না কি দেশে ভোটের আগে শ্রমজীবী এই গরিব মানুষগুলোকে আরও একবার রাজনৈতিক বলির পাঁঠা বানানোর চেষ্টা চলছে?

আরব সাগরের তীরে নতুন করে এই বাংলাদেশী তাড়ানোর ডাক ওঠায় শহরের বাংলাভাষী মুসলিমরাই সবচেয়ে বেশি চিন্তিত। কারণ মোদি সরকার নির্বাচনের মাঠে তাদেরই প্রধান বাধা মনে করছে।

মুম্বাইয়ের দক্ষিণতম প্রান্তে চার্চগেট স্টেশন থেকে ছাড়া যে লোকল ট্রেনগুলো শহরের লাইফলাইন হিসেবে কাজ করে, তার অনেকগুলোরই রুটের একেবারে শেষপ্রান্তে শহরতলির ভায়ান্দার স্টেশন।

আর সেই স্টেশন থেকে একটু দূরেই শহরের গরিবগর্বা মানুষের এক বিশাল কলোনি, লোকের মুখে মুখে যার নাম ‘বাংলাদেশ বস্তি’।

সম্প্রতি ভায়ান্দারের এই বস্তির নাম উঠে এসেছে দিল্লির কনস্টিটিউশন ক্লাবের আলোচনাতেও।

শাসক বিজেপির ভাইস-প্রেসিডেন্ট ও এমপি বিনয় সহস্রবুদ্ধে জানান, বাংলাদেশ থেকে অসংখ্য লোকজন অবৈধভাবে ভারতে ঢুকে ভায়ান্দারে পাড়ি দিচ্ছে।

মুম্বাইয়ের আশেপাশে টিলা-জঙ্গলগুলো দখল করে তারা গড়ে তুলছে বসতি, চালাচ্ছে নানা বেআইনি ধান্দা। এমন কী পুলিশ হানা দিতে গেলেও তাদের পাথর ছুঁড়ে তাড়িয়ে দিচ্ছে এই বাংলাদেশীরা!

বিজেপির এ দাপুটে নেতার হুঁশিয়ারি, অবৈধ বাংলাদেশীর সমস্যা শুধু আসামের নয় – মুম্বাইসহ গোটা দেশেই তা ‘টাইম বোমার মতো টিক-টিক’ করছে।

তার দলের সভাপতি অমিত শাহ তো আরও একধাপ এগিয়ে ভারতে থাকা বাংলাদেশীদের কখনও অনুপ্রবেশকারী আবার কখনও উইপোকা বলেও গালাগাল করছেন।

কিন্তু যেমনটা তারা বলছেন, সত্যিই কি বাংলাদেশীরা ছেয়ে ফেলছেন মুম্বাই শহরতলির বস্তিগুলো?

ভায়ান্দারের তথাকথিত ‘বাংলাদেশ বস্তি’তে খোঁজখবর করতে গিয়ে কিন্তু চমকের পর চমক। বস্তির বাসিন্দা ঊষা, মুকেশরা জানাচ্ছেন তাদের কলোনির নাম বাংলাদেশের নামে হলেও সেখানে একঘর বাঙালি পর্যন্ত নেই।

বরং বাইরের একটা দেশের নামে কেন তাদের কলোনির নাম, সেটাই তাদের এতদিন ভাবিয়ে এসেছে।
আরও পুরনো বাসিন্দাদের কাছে খোঁজখবর করতে গিয়ে জানা গেল, চল্লিশ-পঞ্চাশ বছর আগে যখন পুরনো ঝোপড়পট্টি ভেঙে এই কলোনি গড়ে তোলা হয়, তখন বাংলাদেশ যুদ্ধে জেতার সম্মানেই কিন্তু বস্তির নামকরণ করা হয়েছিল বাংলাদেশের নামে। কিন্তু না, কোনওদিন কোনও বাঙালি এই তল্লাটে কখনওই ছিল না।

Facebook Comments

এ জাতীয় আরো খবর