মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ০৬:০০ অপরাহ্ন

আঞ্জুমান মুফিদুলের ভবন নির্মাণ নিয়ে যা হয়েছে

আঞ্জুমান মুফিদুলের ভবন নির্মাণ নিয়ে যা হয়েছে

সিলেট প্রতিদিন ডেস্ক:: চাঁদা দাবির কারনে নয়, আঞ্জুমান মুফিদুলের ভবন নির্মাণের কাজ বন্ধ রয়েছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তাদের অভ্যান্তরীন ঝামেলার কারণে।  আগামী ৩ অক্টোবর ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বৈঠকের পরে পুনরায় কাজ করা হবে। বেওয়ারিশ লাশ দাফন এবং এতিম শিশুদের লালন পালনসহ নানা দাতব্য কাজ করে আসা সেবামূলক এ সংস্থাটিকে কাকরাইলে ৩০কাঠা জমি দান করেন জামিলুর রহমান। তার দান করা সেই জমির উপর ১৮তলা নিজস্ব ভবন নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০১৪ সালে। বিভিন্ন ব্যাক্তি অ প্রতিষ্ঠানের দান ও অনুদানে ভবনের নির্মাণ কাজ চলছিল।

সম্প্রতি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের এক নেতার বিরুদ্ধে এই ভবন নির্মাণে চাঁদা দাবির অভিযোগ ওঠে। এ বিষয়ে আঞ্জুমান মফিদুলের নতুন ভবনের প্রজেক্ট ডিরেক্টর ইঞ্জিনিয়ার আবুল বাশার খান বলেন, কাজ বন্ধ রয়েছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের কারনে। আগামী ৩ তারিখ আমরা ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বৈঠক করব। তারপর আবার কাজ শুরু হবে। চাঁদা দাবির কারনে কাজ বন্ধ কিনা তার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি চার মাস যাবত দায়িত্ব পালন করছি। এ সময়ে আমার জানা মতে চাঁদা দাবির কোনো ঘটনা আমার কানেও আসেনি। তাহলে আঞ্জুমানের কাজ বন্ধ অভ্যন্তরীণ সমস্যার কারনে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, হ্যাঁ। আমরা মিটিং করে আবার দ্রুত কাজ শুরু করব।

জানা গেছে, আওয়ামীলীগ সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিনের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের বিরুদ্ধে আঞ্জুমান মফিদুল ইসলামের ভবন নির্মাণ কাজে চাঁদা দাবির অভিযোগের সুষ্ঠু তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার আগে গণভবনে যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

এ দিকে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে চাঁদার অভিযোগ প্রসঙ্গে আঞ্জুমান মফিদুলের সহ-সভাপতি গোলাম আশরাফ তালুকদার বলেন, আমি আঞ্জুমানের সহ-সভাপতি এবং এই নির্মাণ কাজের সাথে আমার সম্প্রিক্ততা নেই। যেহেতু আমি এই এলাকায় রাজনীতি করি, সে কারনে ভবন নির্মাণের দায়িত্ব আমাকেই দেওয়া হয়। নিশ্চিতভাবে বলছি, সম্রাটের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তার নুন্যতম সম্পৃক্ততা নেই। বরং ছয় মাস আগে যখন আমি আঞ্জুমানের একটি বিষয় নিয়ে সম্রাটের সঙ্গে কথা বলি, তখন সে আমাকে বলেছিলো, আঞ্জুমানের জন্য যা করার আমি করব কিন্তু আমার একটি দাবি রাখতে হবে- দাবি হলো, ‘আমি যখন মারা যাব তখন যেন আঞ্জুমানের খাটলিতে আমার লাশ উঠানো হয়’। সম্রাটের বিরুদ্ধে এই কথা মনগড়া, কাল্পনিক।

এই ব্যাপারে ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের কাছে জানতে চাইলে  তিনি বলেন, আমার বা আমার সংগঠনের ব্যাপারে এইসব অভিযোগ মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আমি বা আমার কেউ আঞ্জুমানে ফোনও করে নি, চাঁদা দাবিও করে নি। ব্যাক্তিগত ভাবে আমি নিজেই আঞ্জুমানসহ অনেক দাতব্য ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানে সহযোগিতা করে থাকি। আমি নিজেই এই মিথ্যা অভিযোগের সুষ্ঠু বিচার দাবি করি।

নিউজটি শেয়ার করুন






© All rights reserved © 2019 sylhetprotidin24